kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি, পূর্ব মেদিনীপুর: অন্ধ্রপ্রদেশে একটি বেসরকারি নার্সিং কলেজে আটকে পড়েছেন পশ্চিমবঙ্গের প্রায় ১১৪ জন নার্সিং পড়ুয়া। সেখানে চরম সমস্যায় থাকা ওই পড়ুয়ারা রাজ্যে ফেরার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়ে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়কে ই-মেল মারফত আবেদন জানিয়েছেন। পড়ুয়ারা আবেদনে জানা, গত ২১ মার্চ কলেজে ছুটি পড়েছে। তারপর থেকেই হঠাৎ করে লকডাউন ঘোষণা হওয়ায় তারা ট্রেনের টিকিট কেটেও বাতিল করতে বাধ্য হয়েছেন। তারপর থেকে তারা সেখানে আছেন। লকডাউনের কারণে এখন তাদের সেখানে চরম সমস্যার মুখে পড়তে হচ্ছে।

পূর্ব মেদিনীপুরের ভোগপুরের বাসিন্দা এক পড়ুয়া তৃষা বেরা বলেন, এখন এখানে প্রচণ্ড গরম। জলের সংকট রয়েছে। তা ছাড়া ওই কলেজের সন্নিকটে যে আরআইএমএস হাসপাতাল রয়েছে, তা বর্তমানে করোনা হাসপাতালে পরিণত হয়েছে। ফলস্বরূপ কলেজ কবে খুলবে তা তাদের অজানা। সামনে গ্রীষ্মের ছুটি পড়ার কথা। ফলে তারা বাড়ি ফিরতে চান। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে তাদের একান্ত অনুরোধ, উনি যদি পড়ুয়াদের বাড়ি ফিরিয়ে আনার জন্য বিশেষ ব্যবস্থা নেন, তা হলে ওই পড়ুয়াদের সবাই উপকৃত হন। ওই পড়ুয়াদের পাশাপাশি তীব্র উঠকণ্ঠায় রেয়েছেন তাদের বাড়ির লোকজনও। তবে তাদের বিশ্বাস, মুখ্যমন্ত্রী কোনও একটা ব্যবস্থা করবেন যাতে অন্ধ্রপ্রদেশে আটকে পড়া ওই নার্সিং পড়ুয়ারা সবাই ঘরে ফিরতে পারেবেন।

উল্লেখ্য, ভিনরাজ্যে আটকে পড়া ছাত্র-ছাত্রীদের ফেরাতে এর আগে মুখ্যমন্ত্রীর দ্বারস্থ হয়েছিলেন অভিভাবকরা। মাধ্যমিকে রাজ্যে পঞ্চম স্থানাধিকারী সাগর সরকার-সহ উত্তর দিনাজপুরের ইসলামপুরের প্রায় ৫০ জন ছাত্রছাত্রী রাজস্থানের কোটায় নিট পরীক্ষার জন্য কোচিং নিচ্ছে। সর্বভারতীয় পরীক্ষা নিট-এর জন্য দেশের বিভিন্ন রাজ্যের পড়ুয়ারা সেখানে কোচিং নেয়। লকডাউন জারি হওয়ার পর থেকে অন্য অনেক রাজ্যের তরফে তাদের রাজ্যের পড়ুয়াদের ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। কিন্তু, এখনও কোটায় আটকে আছে এই রাজ্যের বহু পড়ুয়া। এমন পরিস্থিতিতে সাগর সরকারের অভিভাবক রহমত আলি মিয়াঁ পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে তার এবং অন্যান্য অভিভাবকদের সন্তানদের রাজস্থানের কোটা থেকে বাড়িতে ফিরিয়ে আনার আবেদন জানিয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here