ডেস্ক: তৃণমূলের বিরুদ্ধে গেরুয়া ঝড়ের ইন্ধন জুগিয়ে সম্প্রতি বাংলা ঘুরে গিয়েছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ। অমিতের বাংলা সফরের পর এবার রাজ্যে পা রাখতে চলেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। আগামী ১৬ জুলাই মেদিনীপুরে কৃষিমন্ত্রকের একটি অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়ার কথা রয়েছে তাঁর। জনসভার পাশাপাশি, সম্প্রতি কৃষিপণ্যের ন্যূনতম সহায়ক মূল্য বাড়িয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। সে বিষয়েই কৃষকদের সঙ্গে কথা বলবেন তিনি। এদিনই মেদিনীপুরে মোদীর সভাস্থল পরিদর্শন করেন বিজেপি নেতা বিশ্বপ্রিয় রায় চৌধুরী। তাঁর সঙ্গে ছিলেন রাজ্য বিজেপির একাধিক নেতৃত্ব।

উল্লেখ্য, ইন্দিরা গান্ধীর পর দেশের প্রধানমন্ত্রী হিসাবে মেদিনীপুর শহরে প্রথম পা রাখবেন নরেন্দ্র মোদী। তবে এই সভায় সরকারি প্রকল্পের পাশাপাশি রাজনৈতিক দিকটিও বেশ গুরুতরপূর্ণ। দেশজুড়ে বিরোধীরা যেভাবে এককাট্টা হয়েছে তাতে বেশ চাপের রয়েছে গেরুয়া মহল। বিরোধী জোটের জেরে যে বেশ কয়েকটি আসন বিজেপি হারাবে বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা। তাই লোকসভায় নিজের আসন পাকা করে রাখতে অন্যপথ অবলম্বন করেছে বিজেপি তাদের লক্ষ্য এখন ওড়িশা, পশ্চিমবঙ্গ এবং উত্তর পূর্বের রাজ্যগুলি। এই রাজ্যগুলিতে নিজেদের ঘাঁটি শক্ত করতে কোনও রকম খামতি রাখতে চাইছেন বিজেপির শীর্ষ স্থানীয়রা।

এদিকে মোদীর রাজ্য সফরে মেদিনীপুরকে বেছে নেওয়ার পিছনেও বিশেষ কারণ আছে বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল। বিশেষজ্ঞদের মতে, সম্প্রতি পঞ্চায়েত নির্বাচনে জঙ্গলমহলে বেশ ভালো ফল করেছে বিজেপি। যার জেরে চাপ বেড়েছে শাসকদলের। হারের কারণ খুঁজতে তৃণমূল যখন অঙ্ক কষতে শুরু করেছে ঠিক তখন এই জায়গাগুলিতে নিজেদের আধিপত্য বজায় রাখতে তোড়জোর শুরু করেছে গেরুয়া ব্রিগেড। সেখান থেকেই জঙ্গলমহলকে আরও বেশি করে শাসক বিরোধী করতে মোদীকে প্রচারে নামাতে চাইছেন তারা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here