kolkata bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: হিন্দি সিনেমায় ‘দেবদাস’ যেন এক আলাদা মোড় এনে দিয়েছিল। দিলীপ কুমারের ‘দেবদাস’-এর সঙ্গে শাহরুখের ‘দেবদাস’-এর তুলনায় নারাজ ছিলেন সঞ্জয় লীলা বনসালী। দুটো ছবি আলাদা, এক করা যায় না। দীলিপ কুমার যা করেছেন সেই মাত্রা কেউ অতিক্রম করতে পারবেন না বলে জানিয়েছেন বনশালী। অন্যদিকে, বনশালীর কথায় একমত শাহরুখও। আজ ১৭ বছর পূর্ণ হল সঞ্জয় লীলা বনসালীর ‘দেবদাস’-এর। তবে ‘দেবদাস’ যতটা নয় বনসালীর তার চেয়েও বেশি শাহরুখ, ঐশ্বর্য্য এবং মাধুরীর। ছবিতে ‘দেবদাস’, ‘পারো’ এবং চন্দ্রমুখী রসায়ণ ছিল মূল সম্পদ।

সেইসময় সবথেকে বড়ো হিট এবং মূল্যবান ছবি ছিল বনসালীর ‘দেবদাস’। বক্স অফিসে সবথেকে বেশি ব্যবসা করেছিল ছবিটি। চিত্রনাট্যের পাশাপাশি সংলাপ যেন সিনেমাপ্রেমীদের মনে বেশি ধরেছিল। সেই সংলাপ আজ সবার মুখে মুখে। দেব এবং পারো দুজনে ছোটবেলার বন্ধু। একসময় দেবকে নিজের গ্রাম ছেড়ে বিদেশে যেতে হয়। কাছের বন্ধু পারোকে ছেড়ে যেতে হয়েছিল। দেব-এর চলে যাওয়া পারো মেনে নিতে পারেনি। বিদেশ থেকে ফেরার পর পারোর সঙ্গে আলাপ হয় দেবের। নতুন করে গড়ে ওঠে দুজনের সম্পর্ক।

বন্ধুত্ব, ভালোবাসা, তবে পরিণতি মোটেই ভালো ছিল না দুজনের। ঠিক সেই সময়েই দুজনের মাঝে আসে চন্দ্রমুখী। দেবকে ভালোবাসতেন চন্দ্রমুখী। চন্দ্রমুখীর কথায়, তার দেববাবু সব জায়গায় আছে। মন্দিরে, ঘরে, আকাশে, বাতাসে সব জায়গাই তিনি দেববাবুকে খুঁজে পান। কেউ ভাবতে পারেনি চন্দ্রমুখী, পারো ভালো বন্ধু হতে পারবে। তা দেখিয়েছেন সঞ্জয়। তবে ‘দেবদাস’-এর ১৭ বছর পূর্তিতে সোশ্যাল মিডিয়ায় ছবির বেশ কয়েকটি দৃশ্য ভাইরাল হয়। যেখানে দেব পারোর ভালোবাসা থেকে শুরু করে পারোর বিয়ে, দেবের শেষ যাত্রা সব কিছুই ফুটে উঠেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here