জোড়া ধর্ষণের ঘটনায় তীব্র চাঞ্চল্য ধূপগুড়ি এলাকায়, গ্রেফতার ২

0
33
kolkata bengali news

নিজস্ব প্রতিবেদক, ধূপগুড়ি: দুটি পৃথক পৃথক ধর্ষণের ঘটনায় জোর চাঞ্চল্য ছড়ালো জলপাইগুড়ি জেলার ধূপগুড়ি থানা এলাকায়। একটি ঘটনায় অভিযুক্ত পাতানো মামা আর অপরটিতে শ্বশুরমশাই। প্রথম ঘটনাটি ঘটেছে ধূপগুড়ি ব্লকের দক্ষিন আলতাগ্রাম এলাকায়। অন্যটি ধূপগুড়ি ব্লকের বারোঘরিয়া গ্রাম পঞ্চায়েতের দক্ষিন ডাঙাপাড়া এলাকায়। দুটি ঘটনার জেরেই পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করা হলে পুলিশ ওই অভিযিক্তকে গ্রেফতার করেছে।

জানা গিয়েছে, দক্ষিন আলতাগ্রাম এলাকায় ফতেজুল হক নামে এক ব্যক্তি একটি পরিবারের সঙ্গে ব্যবসায়ীক সুত্রে আলাপ করে। ওই পরিবারের গৃহিনীকে সে দিদি বলেঅ ডাকতে শুরু করেছিল। ওই মহিলার নাবালিকা মেয়েকে সে ভাগ্নির মত দেখত।

অভিযোগ, ফতেজুল ওই নাবালিকাকে নিজের বাড়িতে নিয়ে আসে এবং মঙ্গলবার বিকালে তাকে বাজারে বেড়াতে নিয়ে যাবার নাম করে রেলগেট এলাকায় নিয়ে যায়। সেখান থেকে রেললাইন ধরে পার্শ্ববর্তী এলাকায় নিয়ে গিয়ে একটি নির্জন স্থানে সে নাবালিকাকে ধর্ষন করে। সেই সঙ্গে ওই ঘটনা প্রকাশ্যে আনলে সে ওই নাবালিকাকে প্রাণে মেরে দেবে বলে হুমকি দেওয়ার পাশাপাশি তার তার দিদিকেও ধর্ষন করার হুমকি দেয়।

বুধবার সকালে ওই নাবালিকা নিজের বাড়িতে চলে আসার পর থেকে মানসিক অবসাদগ্রস্থ হয়ে পড়ে। সোমবার সকালে পরিবারের সামনে ঘটনা প্রকাশ করে ওই নাবালিকা। এরপরই থানায় অভিযোগ দায়ের করে নির্যাতিতার বাবা। ঘটনার অভিযোগ পেয়েই পুলিশ অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে। পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ঘটনার বিষয়ে তদন্ত হয়েছে এবং অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা হয়েছে। নাবালিকার শারীরিক পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে। পাশাপাশি ধৃতকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

অপরদিকে বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগ নিয়ে পুত্রবধূকে ধর্ষণ করার অভিযোগ উঠেছে শ্বশুরের বিরুদ্ধে। ধূপগুড়ি ব্লকের বারোঘরিয়া গ্রাম পঞ্চায়েতের দক্ষিন ডাঙাপাড়া এলাকায় গিরিধর রায় নামে ওই অভিযুক্ত গত শনিবার সকালে বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগ নিয়ে জোর করে তার পুত্রবধূর ঘরে ঢুকে তাকে ধর্ষণ করে।

ঘটনার সময় গিরিধরের স্ত্রী ব্যাঙ্কে গিয়েছিল আর তার ছেলে কাজের জন্যে বাড়ির বাইরে ছিল। এমনকি ওই কুকীর্তির পরে গিরিধর তার পুত্রবধূকে হুমকি দিয়ে বলে ওই ঘটনা কাউকে জানালে তাকে প্রানে মেরে ফেলা হবে। যদিও সেই হুমকিতে কর্ণপাত না করে নির্যাতিতা তার এক বছরের সন্তানকে কোলে নিয়ে ধুপগুড়ি থানায় এসে অভিযোগ দায়ের করেন।

সেই অভিযোগ হাতে পেয়ে ধুপগুড়ি থানার পুলিশ অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে আসে। ঘটনায় দোষীর কঠোর শাস্তির দাবী জানিয়েছেন এলাকাবাসীরাও। ধূপগুড়ি থানার আইসি সুবীর কর্মকার বলেন, মহিলার থেকে ঘটনা শুনেছি। পরে মহিলা লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। সেই ভিত্তিতে তদন্তে নেমে অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পাশাপাশি ঘটনার তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here