মহানগর ওয়েবডেস্ক: মধ্যপ্রদেশে গায়ে গতরে ফুলে-ফেঁপে অনেকটাই বড় হল বিজেপি। আগে থেকে জানা ছিলই এটা হবে। এবার সরকারিভাবে বিজেপিতে নাম লেখালেন জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়ার অনুগামী হিসেবে পরিচিত ২২ বিধায়ক। শনিবার নয়াদিল্লিতে বিজেপি সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডার বাসভবনেই গেরুয়া শিবিরে নাম লেখান তারা। বিজেপি সভাপতি নাড্ডা ছাড়াও, নরেন্দ্র সিংহ তোমর , জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া ও বিনয় সহস্রবুদ্ধের মতোর নেতারা উপস্থিত ছিলেন। এই বিধায়কদের ইস্তফার কারণেই মধ্যপ্রদেশের কমলনাথ সরকারের পতন ঘটে।

শুক্রবার ভোপালে একটি সাংবাদিক বৈঠক করে মুখ্যমন্ত্রী পদ থেকে ইস্তফা দেন কমল নাথ। পদত্যাগের কথা ঘোষণা করেন। কমল নাথ বলেন, ‘কোনও কালেই লেনদেনের রাজনীতির অংশ ছিলাম না আমি। দীর্ঘ ৪০ বছরের রাজনৈতিক জীবনে কেউ এনিয়ে আমার দিকে আঙুল তুলতে পারবেন না।’ সাংবাদিক বৈঠক শেষ করেই রাজ্যপাল লালজি টন্ডনের কাজে পদত্যাগপত্র জমা দিতে যান তিনি। কমলনাথ মুখ্যমন্ত্রী পদে শুক্রবার ইস্তফা দেওয়ার পর এই প্রাক্তন বিধায়কদের সবাইকে বেঙ্গালুরু থেকে নিয়ে আসার প্রস্তুতি শুরু হয়ে যায়। শেষপর্যন্ত শনিবার বেঙ্গালুরুর রিসর্ট থেকে ওই বিধায়করা বিশেষ বিমানে দিল্লিতে পৌঁছন।

আগামী সময়ে এই ২২ জন বিধায়কদের বিধানসভাতেই উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। বলাই বাহুল্য, এই বিধায়কদেরই উপনির্বাচনে টিকিট দেবে বিজেপি। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে শুক্রবার মধ্যপ্রদেশ বিধানসভায় আস্থাভোট হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু তার কয়েক ঘণ্টা আগে পর্যন্ত ২২ জন বিদ্রোহী বিধায়ককে বাগে আনতে পারেনি কংগ্রেস। এরপরই ইস্তফা দেন কমল নাথ।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here