ডেস্ক: গুয়েতমালা শহরের কাছে রবিবার ফুয়েগো আগ্নেয়গিরির হঠাৎ বিস্ফোরণের ফলে অন্ততপক্ষে ২৫ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। এর জেরে ঘরছাড়া অবস্থায় রয়েছেন প্রায় ৩৫০০ মানুষ। আধিকারিকদের দাবি, এই ঘটনার পর এলাকাবাসী খুবই ভীত হয়ে আছেন। উদ্ধারকারীর দল নিখোঁজ এবং মৃতদের উদ্ধারের চেষ্টায়ে বেড়িয়েছিল, কিন্তু পরিস্থিতি এতই ভয়ঙ্কর যে তারা তাদের কাজের কিছুটা বিরতি রাখতে হয়েছে।

আগ্নেয়গিরির ছাই পুরো অঞ্চলের লোকজন এবং গাড়ীগুলিকে ঢেকে দিয়েছে। এখনও অবধি লক্ষ লক্ষ মানুষ মানুষ আটকে রয়েছে। সরকার এসকূএণ্টীলা, শীমাল্টেণেগো, শেকাটেপাকূয়েজ এই তিনটি শহরে লাল সতর্কবার্তা জারি করে দিয়েছে। কারণ এই তিনটি শহরই সবথেকে বেশী ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। অন্যান্য শহরগুলিতেও সতর্কবার্তা জারি রয়েছে।

রিপোর্ট অনুযায়ী, গুয়েতমালা শহরের কাছে ৪০ কিমি দূরে দক্ষিণ-পশ্চিমে একটি শান্ত আগ্নেয়গিরি থেকে আকাশের ওপর ছাই আর কালো ধোঁয়া বেরনোর খবর পাওয়া যাচ্ছিল। এরপরই আচমকা জেগে ওঠে ঘুমন্ত অবস্থায় থাকা এই আগ্নেয়গিরি। এই ঘটনার পর গুয়েতমালা শহরের আড়োড়া আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বিমান ওঠানামাও বন্ধ করে দেওয়া হয়। পাশাপাশি বাড়িগুলিকে খালি করিয়ে দেওয়া হয়েছে। আগ্নেয়গিরির লাভা পাশের কয়েকটি গ্রামে পৌছে যাওয়ায় গ্রামগুলিও ক্ষতিগ্রস্থ হয়। রাষ্ট্রপতি জিমি মোড়ালেশ দেশব্যাপী জরুরী অবস্থা ঘোষণা করেছেন এবং লোকেদের শান্ত এলাকায় চলে যাওয়ার জন্য অনুরোধ করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here