মহানগর ওয়েবডেস্ক: গত সপ্তাহে উত্তরপ্রদেশের সোনভদ্রে গুলিতে মৃত্যু হয়েছিল ১০ জন কৃষকের। সেই ঘটনার পর শনিবার এলাকা পরিদর্শনের জন্য এবং মৃতের পরিবারের সঙ্গে সাক্ষাতের জন্য গিয়েছিলেন কংগ্রেস নেত্রী প্রিয়াঙ্কা গান্ধী। কিন্তু যোগী সরকারের পুলিশ কোনও ভাবেই তাঁকে ওই এলাকায় ঢুকতে দিল না। শুধু প্রিয়াঙ্কা নন, এদিন ওই এলাকায় যাওয়ার জন্য বারাণসী বিমান বন্দরে নামার পরই আটকে রাখা হয় তৃণমূলের ৩ সাংসদের প্রতিনিধি দলকে। এদিন সেই ঘটনার ভিডিও বারাণসী থেকে টুইট করে জানিয়েছেন তৃণমূল নেতা ডেরেক ও’ব্রায়েন।

নিজের টুইটে ডেরেকের দাবি, বিমানবন্দরে নামার পরই তাদের আটকায় পুলিশ। পাল্টা সাংসদদের তরফে প্রশ্ন করা হয় কেন তাঁদের আটকান হচ্ছে। উত্তর আসে উপর মহলের নির্দেশ রয়েছে। এমনকি স্থানীয় এডিএম ও এসপিকে প্রশ্ন করা হলে একই উত্তর দেয় তাঁরাও। শুধু তাই নয়, ডেরেকের দাবি সেখান থেকে তাদের আটক করে কোনও একটি গেস্ট হাউসে তাদের নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছে পুলিশ। পুলিশের বক্তব্য, সোনভদ্রে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। প্রতিনিধি দল গেলে আইনশৃঙ্খলার অবনতি হতে পারে। যদিও ডেরেকের তরফে বলা হয় তাদের দলে খুব কম সংখ্যক লোকই রয়েছে। এবং কোনও ভাবেই ওই স্থানে তাদের যেতে দেওয়া হয়নি।

ওদিকে আবার সোনভদ্রে যেতে না দেওয়ায় মির্জাপুরে গত রাত থেকেই ধর্ণায় বসেন কংগ্রেস নেত্রী প্রিয়াঙ্কা গান্ধী। সকাল থেকে তাঁর একটাই দাবি ছিল তিনি এলাকায় গিয়ে মৃতের পরিবারের সঙ্গে কথা বলবেন। তবে তাঁর সে আবেদন মানেনি সরকার। যদিও শেষ পর্যন্ত প্রিয়াঙ্কাকে এলাকায় ঢোকার অনুমতি দেওয়া হয়। উল্লেখ্য, বংশানুক্রমিক ভাবে চাষ করা এক জমি দখলকে কেন্দ্র করে গত বুধবার উত্তপ্ত হয়ে ওঠে সোনপুর। যাজ্ঞ দত্ত নামে এক ধনী ব্যক্তি ওই জমি দখল করার জন্য ২০০ লোক নিয়ে আদিবাসীদের ওপরে চড়াও হন। যাজ্ঞ দত্তের সঙ্গীরা চাষিদের ওপরে গুলি চালায়। সেই ঘটনায় মৃত্যু হয় অন্তত ১০ জনের।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here