kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি, উলুবেড়িয়া: হাওড়ার আমতায় একটি পাড়ায় করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৩০ জন। আর এই ঘটনা সামনে আসতেই প্রশ্ন উঠছে তবে গ্রামীণ হাওড়ায় গোষ্ঠী সংক্রমণ শুরু হয়ে গেল? যদিও এলাকার বিধায়ক তথা মন্ত্রী নির্মল মাজি জানিয়েছেন, এখনও আমতার কোথাও গোষ্ঠী সংক্রমণ শুরু হয়নি। জানা গিয়েছে, এই এলাকার একজন ক্ষৌরকার রানিহাটির একটি সেলুন দোকানে কাজ করতেন। লকডাউনের কারণে সেলুন দোকান বন্ধ থাকায় অর্থনৈতিক ভাবে সমস্যায় পড়েছিলেন। বেশ কিছুদিন ধরেই পরিযায়ী শ্রমিকদের কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে চুল কাটতে যেতেন ওই এই ক্ষৌরকার। দিন পনেরো আগে তার করোনার উপসর্গ দেখা দেওয়ায় আমতা হাসপাতালে যান। সেখানে তার নমুনা সংগ্রহ করা হয় এবং তাকে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকতে বলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

অভিযোগ, ওই ব্যক্তি হোম কোয়ারেন্টাইনে না থেকে চারদিকে ঘুরে বেড়ান। তার করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট আসার পরেই তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এই ঘটনার পর সংশ্লিষ্ট গ্রামের ২০০ জনের করোনার পরীক্ষা করা হয়। তার মধ্যে ১২০ জনের ফল আসার পর দেখা যায় ২৯ জনের ফল পজিটিভ। বাকি ৮০ জনের পরীক্ষার ফল আগামী রবিবার আসার কথা রয়েছে। প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, এই ২৯ জনের মধ্যে ১২ জনকে কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে ও ১৭ জনকে হোম কোয়ারেনটাইনে রাখা হয়েছে। এলাকার রাস্তা সিল করে স্যানিটাইজ করার কাজ চলছে।

ঘটনা প্রসঙ্গে নির্মল মাজি বলেন, নাপিতপাড়ায় ৩০ জনের করোনা পজেটিভ বেরিয়েছে। নাপিতপাড়াকে কনটেইনমেন্ট জোন হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। দিনে দু’বার করে আশাকর্মীরা সেখানে গিয়ে মানুষের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করছেন। প্রশাসন কড়া নজরদারি চালাচ্ছে।   আমতা বাজারে আসা মানুষ যাতে করে সমস্ত নিয়ম মেনে বাজার করেন, সেই দিকেও কড়া নজরদারি চালানোর পাশাপাশি বাজারে একটি এন্ট্রি ও একটি এক্সিট পাস তৈরি করে হাতে স্যানিটাইজার দেওয়া হচ্ছে। প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, নাপিতপাড়া-সহ আমতায় সর্বমোট ৫৩ জন করোনা পজিটিভ পাওয়া গিয়েছে। তাদের মধ্যে ৩০ জনকে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে এবং ২০ জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। পাশাপাশি ৩ জন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here