mamata banerjee
দুঃস্থদের কেন্দ্র করেই বাজেট

মহানগর: শিক্ষা আর স্বাস্থ্যই যে কোনও মানুষের ভিত্তি। এই দুটো ঠিক থাকলে, বহু প্রতিকূলতাকে জয় করা যায়। চলতি বাজেটে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় শিক্ষা ও স্বাস্থ্যের ওপর বেশি জোর দিলেন।

মাতৃভাষায় শিক্ষার ওপর জোর দেওয়া হয়েছে চলতি বাজেটে। তা সে নেপালি ভাষার পড়ুয়া হোক বা উর্দুতে কেউ যদি পড়তে চায়। তপশিলী, আদিবাসী ও দুঃস্থ পড়ুয়াদের জন্য ১০০টি ইংরেজি স্কুল তৈরির প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। সেখানে ৫০ কোটি টাকা বরাদ্দের ঘোষণা করেন। পাশাপাশি অলচিকি ভাষায় ৫০০টি নতুন স্কুলের ঘোষণা করা হয়। যেখানে অলচিকি ভাষায় পড়ানোর জন্য দেড় হাজার প্যারা টিচার নেওয়া হবে। এই কর্মসূচির জন্য ১০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। নেপালি, হিন্দি, উর্দু, কামতাপুরি ভাষায় পড়ার জন্য ১০০টি স্কুলের ঘোষণা করেন। বরাদ্দ অর্থের পরিমাণ ৫০ কোটি টাকা। চা বাগানের পড়ুয়াদের পড়াশোনার অসুবিধা না হয়, তার জন্য ১০০টি স্কুলের ঘোষণা করেন। সেখানে ৩০০ জন প্যারাটিচার নেওয়া হবে। রাজবংশী ভাষায় পাড়ার জন্যও পড়ুয়াদের স্কুলের ব্যবস্থা করা হয়েছে। অনেক মাদ্রাসার সরকারি অনুমোদন রয়েছে। কিন্তু তারা সরকারি সাহায্য পায় না। সেই সরকারি সাহায্য যাতে মাদ্রাসা পায়, তার ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

বাজেট পেশের সময় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, দেশের প্রথম রাজ্য পশ্চিমবঙ্গ, যেখানে ১০ কোটি নাগরিককে সরকারি কোনও না কোনও স্বাস্থ্য বিমার আওতায় নিয়ে আসা হয়েছে। বহু মানুষ স্বাস্থ্যসাথীর সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন। এখন কেউ স্বাস্থ্যস্বাথীর সঙ্গে যুক্ত না হলেও, পরে তাঁরা স্বাস্থ্যসাথীর সঙ্গে যুক্ত হতে পারবেন। এই স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্প ধারাবাহিকভাবে চলবে। তিন বছর অন্তর অন্তর স্বাস্থ্যসাথী কার্ড নবিকরণ করা যাবে। স্বাস্থ্যসাথীর অধীনে প্রতি বছর পঁচলক্ষ টাকার ক্যাশলেস চিকিৎসার সুবিধা পাওয়া যাবে। এর জন্য বাজেটে ১,৫০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here