news bengali kolkata

Highlights

  • মদ্যপ অবস্থায় কটূক্তি করতেন অভিযুক্ত যুবক
  • মহিলা বা স্কুল-কলেজ ছাত্রী রেহাই ছিল না কারোরই
  • ধৈর্যের বাঁধ ভাঙতেই চরম শিক্ষা

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাঁকুড়া: কটূক্তি হয়ে উঠেছিল নিত্যনৈমিত্তিক ঘটনা। স্থানীয় মহিলা ও ছাত্রীদের দিনের পর দিন সহ্য করছিলেন এই সমস্ত কটূক্তি। ভেবেছিলেন একদিন বন্ধ হয়ে যাবে। বন্ধ তো হলই না বরং দিনদিন তা বাড়তে থাকল। আর এতেই তিতিবিরক্ত হয়ে যুবককে চরম শিক্ষা দিল গ্রামবাসীরা।

মদ্যপ অবস্থায় দিনের পর দিন স্থানীয় মহিলা ও স্কুল-কলেজের ছাত্রীদের কটূক্তি করার অভিযোগ ছিল দীর্ঘদিনের। বারবার বলেও লাভ হয়নি মদ্যপ যুবককে আটকানো। উপেক্ষা বা নরমেগরমে কিছুতেই দমেনি কাশী দাস নামে ওই যুবক। অবশেষে তাকে চরম শিক্ষা দিতে বিদ্যুতের খুঁটিতে বেঁধে বেঢড়ক মারধর করলেন স্থানীয় বাসিন্দারা। বৃহস্পতিবার সকালে ঘটনাটি ঘটে বাঁকুড়া সদর থানার কাঞ্চনপুর মোড়ে। ঘটনায় এলাকা জুড়ে চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছে।

স্থানীয়দের দাবি, কাশী দাস দিনের পর দিন মদ্যপ অবস্থায় কাঞ্চনপুর মোড়ে এসে বসে থাকে। অভিযোগ, পথ চলতি মহিলা ও স্কুল কলেজের ছাত্রীদের রাস্তা পেরোতে দেখলেই তাঁদের উদ্দেশ্যে ওই যুবক কটূক্তি ও অশালীন অঙ্গভঙ্গি করে। এদিন স্থানীয় এক মহিলার উদ্যেশ্যে এই ধরনের কটূক্তি করলে স্থানীয় বাসিন্দাদের ধৈর্যের বাঁধ ভেঙে যায়। উত্তেজিত জনতা মদ্যপ কাশী দাসকে রাস্তার ধারে খুঁটিতে বেঁধে ব্যাপক মারধর করে।

মারধরের সময়ে যুবক নিজের ভুল স্বীকার করে। আগামীদিনে এই ধরনের আচরন আর করবে না বলেও কথা দেয়। ক্ষমা চাওয়ার পরে স্থানীয়রা তাকে ছেড়ে দেয়। তবে গণপ্রহারের ভূমিকায় উঠেছে প্রশ্ন। অনেকের দাবি, কটূক্তি করলে পুলিশে জানানো উচিত বা থানায় নিয়ে যাওয়া উচিত ছিল। গণপ্রহার মানে হাতে আইন তুলে নেওয়া।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here