news kolkata bengali

নিজস্ব প্রতিবেদক, পূর্ব বর্ধমান: করোনা-য় আক্রান্ত হতে পারে এই সন্দেহে কাতার থেকে ফেরা যুবককে রাখা হল আইসোলেশন ওয়ার্ডে। অবশ্য করোনা আক্রান্ত কী না তা নিশ্চিত করেনি স্বাস্থ্য দফতর। সতর্কতার জন্যই ১৪ দিনের পর্যবেক্ষণে রাখা হচ্ছে, বলে জানানো হয়েছে।

করোনা আতঙ্কে বুধবার বিমানে করে কাতার থেকে দেশে ফেরেন কৃষ্ণেন্দু ভট্টাচার্য। পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, তিনি ইঞ্জিনিয়ার। আটমাস ধরে কাতারে কর্মরত ছিলেন কৃষ্ণেন্দু। সর্দি ও কাশিতে ভুগছিলেন তিনি।

এরপরেই করোনা আক্রান্ত কী না, সেই সম্বন্ধে নিশ্চিত হতে যুবককে নিয়ে আসা হয় কালনা সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে। এখানেই ১৪ দিন আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি থাকবেন কালনার নেপপাড়া অঞ্চলের যুবক। হাস্পাতালের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, করোনা সংক্রমিত কী না তা জানতেই পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। সেই সঙ্গে গুজব ছড়াতেও না বলা হয়েছে। সবাইকে সচেতন থাকার ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে বলা হয়েছে। সরকারি নির্দেশিকা মানতে বলা হয়েছে।

বাঁকুড়া, পশ্চিম মেদিনীপুরে আইসোলশনে রাখা হয়েছিল একধিক জনকে। পর্যবেক্ষণের পর স্বাস্থ্য দফতরের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, পশ্চিম মেদিনীপুর জেলাতে করোনা আক্রান্ত কেউ নেই। বাঁকুড়াতেও কেউ করোনা আক্রান্ত নন বলে জানানো হয়েছে। পুরুলিয়া সহ বিভিন্ন জেলায় আইসোলেশনে আছেন বেশ কয়েকজন। তবে স্বাস্থ্য দফতরের পক্ষ থেকে বারবার গুজব ছড়াতে নিষেধ করে বলা হয়েছে, আইসোলেশন হল প্রতিরোধমূলক পদ্ধতি। পর্যবেক্ষণে থাকা মানেই তিনি করোনা আক্রান্ত নন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here