নিজস্ব প্রতিবেদক, বারাসত: সিঙ্গুরের কৃষিজমি অধিগ্রহনের বিরুদ্ধে আন্দোলন করতে গিয়ে মামলায় জড়িয়ে ছিলেন বর্তমান বিরোধী দলনেতা আব্দুল মান্নান। সেই মুহূর্তে হাতে হাত সিঙ্গুর নিয়ে লড়াই চালিয়েছিল রাজ্য তৃণমূল এবং কংগ্রেস। সময় পাল্টেছে, গঙ্গা দিয়ে বয়েছে অনেক জল। যে তৃণমূল ও কংগ্রেসের একটা সময় ছিল গলায় গলায় ভাব সেই সম্পর্কে আজ পড়েছে ছেদ। সিঙ্গুর আন্দোলনের বহু দিন পেরিয়ে গেলেও তা নিয়ে মামলা চলছে একাধিক রাজনৈতিক নেতার বিরুদ্ধে। তাঁরই একজন আব্দুল মান্নান। হাইওয়ে অ্যাক্টে তাঁর বিরুদ্ধে চলা একটি মামলায় জামিনে মুক্ত থাকলেও এদিন বারাসত আদালতে হাজিরা দিতে গিয়েছিলেন এই বিরোধী নেতা। সেখান থেকেই তৃণমূলের বিরুদ্ধে একের পর এক আক্রমণ শানান তিনি।

এদিন সাংবাদিকদের সামনে কংগ্রেসের নেতা আব্দুল মান্নান বলেন, ‘সিঙ্গুরের জমি বাঁচাতে বর্তমান মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে একসাথে আন্দোলন করেছিলাম আমরা।পরবর্তী কালে সিঙ্গুর ও নন্দীগ্রামে কংগ্রেস আলাদা আন্দোলন করে। কিন্তু যে চোর তাড়াবার জন্য সেদিন আমরা লড়াই শুরু করেছিলাম, বুঝতে পারিনি চোরকে তাড়িয়ে এক বিষধর কাল কেউটেকে রাজ্যে ক্ষমতায় এনেছি।’ তাঁর কথায়, ‘আজ বাংলায় তৃণমূল এবং বিজেপি একটি টিম হয়ে কাজ করছে। রাজ্যে রাজনৈতিক আগ্রাসন চালাচ্ছে শাসক দল।’

এদিন তাঁর বক্তব্যে ছিল বালি ও জমি মাফিয়াদের প্রসঙ্গও। গতকালই এই নিয়ে কড়া হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সে প্রসঙ্গে আব্দুল মান্নান বলেন, ‘রাজ্য জুড়ে জমি মাফিয়া নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী সোচ্চার হলেও আদতে প্রশাসন কোনো ব্যবস্থাই নিচ্ছে না। তলে তলে সব ভালোভাবেই চলছে। একটু আধটু হম্বিতম্বি মাত্র।’ সেই সঙ্গে তিনি যোগ করেন, ‘রাজ্যে বিরোধী শক্তিকে কখনও এভাবে ভাঙা হয়নি। এই সরকার ক্ষমতায় আসার পর রাজ্য জুড়ে হিংসার বাতাবরণ সৃষ্টি হয়েছে।’ রাজ্যের গণতন্ত্রের স্বার্থে ধর্মনিরপেক্ষ সমস্ত শক্তিকে এক হওয়ার কথাও বলেন চাপদানির বিধায়ক আব্দুল মান্নান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here