kolkata news
Highlights

  • পশ্চিমবঙ্গের বিজেপি পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয়কে বাঁদরের সঙ্গে তুলনা করলেন তৃণমূলের বীরভূম জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল
  • সিএএ-এনআরসির প্রতিবাদে আউশগ্রামের এক সভায় দাপুটে নেতা বলেন, কৈলাস বিজয়বর্গীয়কে এখানে এনে দাঁড় করান।
  • তাঁর মুখ দেখে কেউ যদি বাঁদর না বলে, তা হলে আমি রাজনীতি ছেড়ে দেব


নিজস্ব প্রতিনিধি, আউশগ্রাম:
পশ্চিমবঙ্গের বিজেপি পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয়কে বাঁদরের সঙ্গে তুলনা করলেন তৃণমূলের বীরভূম জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল। সিএএ-এনআরসির প্রতিবাদে আউশগ্রামের এক সভায় দাপুটে নেতা বলেন, ‘কৈলাস বিজয়বর্গীয়কে এখানে এনে দাঁড় করান। তাঁর মুখ দেখে কেউ যদি বাঁদর না বলে, তা হলে আমি রাজনীতি ছেড়ে দেব।’ এই সভায় তিনি আরও এক বিতর্কিত কথা বলেন। বলেন, ‘বিজেপির কথা শুনে কেউ ঝামেলা করবেন না, কেউ ঝামেলা করতে এলে গরুর মতো পেটান’।

প্রসঙ্গত, ‘প্রথমে নিজের গায়ের ময়লা পরিষ্কার করুন, তারপরে দিল্লির বিষয় নিয়ে কথা বলতে আসবেন। নিজের দলের সাত মন্ত্রী ঘুস নিয়ে বসে আছেন, প্রথমে সেগুলো তদন্ত করুন। তৃণমূলের শাসনকালে ভারতীয় জনতা দলের শতাধিক কর্মী খুন হয়েছেন। এই সরকার ভ্রষ্ট সরকার, হিংসাশ্রয়ী সরকার। আগে নিজের সরকারের ওপর যে কালো দাগ আছে, তা পরিষ্কার করুন, তারপর দিল্লির সরকারের দিকে আঙুল তুলবেন।’ বৃহস্পতিবার নদিয়ায় এক কর্মী সভায় এই ভাষায় তৃণমূল তথা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আক্রমণ করেছিলেন পশ্চিমবঙ্গের বিজেপি পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয়।

এদিন সেই প্রসঙ্গ তুলে অনুব্রত বলে, ‘কৈলাস বিজয়বর্গীয় মুখটা দেখেছেন? বলছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের গায়ে নোংরা আছে। কৈলাস বিজয়বর্গীয়কে এখানে এনে দাড় করান। ওর মুখটা দেখে যদি বাঁদরের মতো না বলে , তা হলে আমি রাজনীতি ছেড়ে দেব।’ অনুব্রতের এই কথা নিয়ে ফের বিতর্ক শুরু হয়েছে।

এদিন এই সভায় রেশন ডিলারদের উদ্দেশেও হুঁশিয়ারি দিয়ে অনুব্রত বলেন, অনেক ডিলার ১ দিন ছাড়া রেশন দিতে চান না। লোকে এসে ফিরে যান। অথচ ডিলাররা এক মাসের পাওনা তুলে আনেন। সপ্তাহে ৪ দিন দোকান না খুললে বা বেনিয়ম করলেই বিডিও ও তাঁকে জানাতে বলেন। তবে প্রথমে গরুর মতো পেটানোর নিদান দিলেও পরে অবশ্য ভুল শুধরে নিয়ে বলেন, কেউ ঝামেলা করতে এলে নিজেদের হাতে আইন তুলে না নিয়ে পুলিশকে জানাতে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here