kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি, মালদা: দলীয় পঞ্চায়েত প্রধানের বিরুদ্ধে সরকারি অর্থ তছরুপের অভিযোগ তুললেন প্রাক্তন মন্ত্রী কৃষ্ণেন্দুনারায়ণ চৌধুরি। আজ দুপুরে নিজস্ব দফতরে সাংবাদিক বৈঠক ডেকে ,মালদার ইংরেজবাজারের যদুপুর ২ ব্লকের প্রধানের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ তোলেন তিনি। প্রধানের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ দায়ের করেছেন উপভোক্তারা। অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু করেছে ইংরেজবাজার থানার পুলিশ।

কৃষ্ণেন্দুবাবু বলেন, যদুপুর ২ গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান সাজ্জাদ আলি, ইংরেজবাজার পঞ্চায়েত সমিতির তৃণমূল সদস্য আঞ্জুর শেখ, শহরের এক হোটেলের মালিক এবং একটি ব্যাঙ্কের মালদা শাখার ম্যানেজারের বিরুদ্ধে গত পরশু ইংরেজবাজার থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন ওই এলাকার চার বাসিন্দা৷ কীভাবে উপভোক্তাদের প্রতারিত করা হয়েছে তাও বিস্তারিত জানান কৃষ্ণেন্দুবাবু। তিনি বলেন, ‘গত বছরের ডিসেম্বরে সাজ্জাদ আলি ও আঞ্জুর শেখ গ্রামবাসীদের জিরো ব্যালেন্সে অ্যাকাউন্ট খোলার জন্য এলাকায় একটি ক্যাম্প করেন৷ সেখানে প্রায় ১০০ জন বাসিন্দা অ্যাকাউন্ট খুললেও উপভোক্তাদের হাতে পাসবুক, এটিএম কার্ড কিংবা চেকবুক দেওয়া হয়নি৷’

তিনি আরও বলেন, ‘দীর্ঘদিন উপভোক্তারা ব্যাঙ্কের পাশবই, চেকবই হাতে না পেয়ে তাঁর কাছে আসেন। তিনি উপভোক্তাদের নিয়ে ব্যাঙ্কে যোগাযোগ করেন। ব্যাঙ্কের নথিতে তিনি দেখতে পান ওই উপভোক্তাদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট থেকে শহরের একটি নামী হোটেলে কার্ড সোয়াইপ করে দফায় দফায় টাকা গিয়েছে। তিনি ওই হোটেলের সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখতে গেলে ওই হোটেলের মালিক তাঁকে বিষয়টি মিটিয়ে নিতে বলেন। পরে জানা যায়, ওই উপভোক্তাদের অ্যাকাউন্টের সঙ্গে যোগ থাকা মোবাইল নম্বরও বদলে দেওয়া হয়েছে। এরপরেই দুর্নীতির বিষয়টি পরিষ্কার হয়ে যায়। সরকারি টাকা লুট করতেই এই ঘটনা ঘটানো হয়েছে৷ ইতিমধ্যে কোটি কোটি টাকা লুট হয়েছে৷ গ্রামবাসীদের অ্যাকাউন্টে ধান কেনার টাকা-সহ একাধিক প্রকল্পের টাকা ঢুকিয়ে সে সব জালিয়াতি করে লুট করা হচ্ছে৷’

এক অভিযোগকারী জান্নাতুন বিবি বলেন, এলাকার অনেকের টাকা প্রধান তুলে নিয়েছেন৷ অ্যাকাউন্ট করার সময় সরকারি সাহায্যের কথা বলে প্রধান অ্যাকাউন্ট করিয়েছিল। কিন্তু ব্যাঙ্কের পাশবই, এটিএম কার্ড হাতে না পেয়ে ব্যাঙ্কের দ্বারস্থ হই। ব্যাঙ্ক থেকে প্রধানের কাছে যেতে বলে। আমরা জানতে পেরেছি, আমাদের অ্যাকাউন্টে টাকা ঢুকেছে। সেই টাকা কেউ বা কারা তুলেও নিয়েছে। বাধ্য হয়ে আমরা থানায় অভিযোগ দায়ের করেছি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here