kolkata bengali news

ডেস্ক: একের পর এক অসংযত মন্তব্য করার জন্য নির্বাচন কমিশনের রোষের মুখে পড়তে হয়েছে অনুব্রত মণ্ডলকে। তাঁর বিরুদ্ধে নির্বাচন কমিশনের মতো প্রতিষ্ঠানের মর্যাদা ক্ষুণ্ণ করার অভিযোগও উঠেছে। অনুব্রত নিজে সংযত হওয়ার নিদান দিলেও তাঁকে আক্রমণে পিছ পা হচ্ছেন না বিরোধীরা। বীরভূমের দৌর্দণ্ডপ্রতাপ নেতা কেষ্টর ‘পাঁচন’ দাওয়াইকে হাতিয়ার করে এবার পাল্টা নাচন দেখানোর হুমকি দিলেন অধীর চৌধুরী। বুধবার মুর্শিদাবাদে কান্দির এক জনসভায় এসে অনুব্রত থেকে মমতা, এমনকি দলবদলুদেরও চরম কটাক্ষ করেন অধীর।

অনুব্রত মণ্ডলের নাম না করেন প্রাক্তন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি বলেন, ‘বীরভূমের এক পালোয়ান বলছে আমাদের পাঁচন দেবে। আমি বলছি, পুলিশ বাবাকে সরিয়ে একবার সামনে আয় আমি তোকে পাঁচনের নাচন দেখাব। এত বাহাদুরি হলে সামনে পিছনে পুলিশ কেন। মেয়েদের হাতে যাতে মার না খেতে হয় তার জন্য চারটে মেয়ে পুলিশও রেখেছে।’ যারা দল বদলে কংগ্রেস থেকে তৃণমূলে গিয়েছেন, তাদের এদিন ‘চাইনিজ বকরি’ বলে কটাক্ষ করেন অধীর। বলেন, ‘হাটে গেছিলাম। এক জায়াগায় খুব ভিড় করে লোকজন বকরি কিনছিল। আমি জিজ্ঞেস করলাম, এত ভিড় কেন? বলল, সস্তায় চাইনিজ বকরি দিচ্ছে। আমি বললাম, চাইনিজ বকরিতে কী হয়? ওরা বলল, এরা খাবে দাবে নেবে আর পালাবে। আমাদেরও অনেক চাইনিজ বকরি তৃণমূলে চলে গেছে।’

স্বভাবসিদ্ধ ভঙ্গিতেই চিরাচরিতভাবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেও আক্রমণ করেন অধীর। বলেন, ‘মুখ্যমন্ত্রী আপনার যদি হিম্মত থাকে আপনি এখানে দাঁড়ান। আপনার সঙ্গে লড়তে চাই। আপনার অস্ত্র আছে, পুলিশ আছে, বোমা-পিস্তল আছে, টাকা আছে। আমাকে হারানোর জন্য ৩০ কোটি খরচ করা হচ্ছে। সব টাকা হারামের।’ অধীরের আরও বক্তব্য, ‘মুসলিমদের দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে ভোট শোষণ করা হচ্ছে। ও (মমতা) দেড় হাজার দু’হাজার টাকা করে ইমাম ভাতা দিয়ে ভোট কিনতে চায়।’

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here