advani-1

ডেস্ক: সংবিধান প্রণেতা বিআর আম্বেদকর দলিত আন্দোলনের অন্যতম নেতা। জাতপাত ও কুসংস্কার মুক্ত ভারত গড়তে, অনগ্রসর জাতি ও মহিলাদের উন্নয়নে এবং সমাজে সাম্য, ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠার জন্য তিনি আজীবন সংগ্রাম চালিয়ে গিয়েছেন। বর্তমান ভারতেও তাঁর মতো নেতার বিশেষ প্রয়োজন। তা হয়ত বর্ষীয়ান বিজেপি নেতা লালকৃষ্ণ আডবাণী ভীষণভাবে উপলব্ধি করছেন। তাই বাবাসাহেবের ১২৮ তম জন্মবার্ষিকীতে তাঁকে শ্রদ্ধা জানাতে গিয়ে সংসদ চত্বরেই কান্নায় ভেঙে পড়লেন তিনি। যদিও এই কান্নার কারণ সম্পর্কে আডবাণী কিছু জানননি।

তবে বাবাসাহেবের দেখানো পথই যে সকলের পাথেয় হওয়া উচিত, বিশেষত দেশের শাসনভার যাঁদের হাতে ন্যস্ত তাঁদের সেই পথেই চলা জরুরি। কিন্তু বর্তমানে দেশ, দেশের নেতা-মন্ত্রীরা যে সেই পথ থেকে অনেকটাই সরে এসেছেন, তা বলার অপেক্ষা রাখে না। দেশের এই করুণ অবস্থাই বর্ষীয়ান নেতার অশ্রুর মধ্য দিয়ে বেরিয়ে এসেছে বলে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের অনুমান।

 

রবিবার ভীমরাও আম্বেদকরের ১২৮ তম জন্মবার্ষিকী ছিল। সংসদ চত্বরেই তাঁকে পূর্ণ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় শ্রদ্ধা জানান রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, উপরাষ্ট্রপতি বেঙ্কাইয়া নাইডু, লোকসভার স্পিকার সুমিত্রা মহাজন, প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং সহ বিশিষ্ট নেতৃবর্গ। পরে টুইট করেও তাঁরা সংবিধান প্রণেতার প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন। বিজেপি নেতৃত্বকে খোঁচা তবে কেবল টুইট করে বা বাবাসাহেবের মূর্তিতে ফুল নিবেদন করলেই যে তাঁকে প্রকৃত শ্রদ্ধা জানানো হবে না, ‘আমাদের সকলকে ন্যায়বিচার, স্বাধীনতা, সাম্যতা এবং সৌভ্রাতৃত্ব’ বজায় রাখার প্রতিশ্রুতি নিতে হবে বলে আম্বেদকরের জন্মদিনেই টুইট করেছিলেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here