kolkata bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: তিনি ঝোলেও রয়েছেন, রয়েছেন অম্বলেও৷ কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা তুলে নেওয়ার পর থেকে অনেক মন্তব্যই করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প৷ তবে তাঁর কোনও মন্তব্যেই অস্বস্তিতে পড়তে হয়নি ভারতকে৷ কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা তুলে নেওয়ার বিষয়টি পৌঁছেছিল রাষ্ট্রপুঞ্জেও৷ সেখানে এই ইস্যুতে রুদ্ধদ্বার বৈঠকও হয়ে গেছে৷ কিন্তু এ নিয়ে একবারও কথা হয়নি নয়াদিল্লি ও ওয়াশিংটনের৷ সেটাই অবশেষে হল সোমবার৷ সোমবার সন্ধেবেলা ফোনে কথা হয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের৷ তবে মোদীর সঙ্গে কথার পরই ট্রাম্প ফোন করেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে৷

প্রায় ৩০ মিনিট ফোনে কথা হয় দুই দেশের রাষ্ট্রপ্রধানের৷ দ্বিপাক্ষিক কথোপকথনে বাণিজ্যিক আলোচনা যেমন হয়েছে তেমনই সীমান্ত-সন্ত্রাস ও হিংসার বাতাবরণের কথা তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী৷ একইসঙ্গে নাম না করে কাশ্মীর ইস্যুতে পাকিস্তানের অবস্থান নিয়ে কটাক্ষ করেন প্রধানমন্ত্রী৷ তিনি বলেন, এমন কিছু নেতা রয়েছেন যারা ভারত নিয়ে উস্কানিমূলক কথা বলছেন,যা শান্তির পক্ষে উপযুক্ত নয়৷ যদিও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে কথা বলার পরই পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে ফোন করেন ডোনাল্ড ট্রাম্প৷ এরপরই হোয়াইট হাউজ থেকে জানানো ,কাশ্মীর নিয়ে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে চলা চাপা উত্তেজনা কমানোর কী উপায় রয়েছে তা নিয়ে আলোচনা হয়েছে পাক প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে৷ এমনকি টুইট করে একথা স্বীকার করেন ট্রাম্প৷ টুইটে তিনি বলেন, একটু আগেই দুজন ভালো বন্ধুর সঙ্গে কথা হয়েছে তাঁর৷ একজন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও অন্যজন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান৷ বাণিজ্য, কূটনৈতিক সম্পর্ক ,সঙ্গে কাশ্মীর ইস্যুতে দুদেশের মধ্যে বেড়ে চলা উত্তেজনা নিয়েও কথা হয়েছে তাঁর৷

ট্রাম্পের এহেন কার্যকলাপে স্পষ্ট যে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে কোনও দেশকেই চটাতে চান না তিনি৷ তাই দু নৌকাতেই পা দিয়ে চলছেন ট্রাম্প৷ কাশ্মীর ইস্যু সম্পূর্ণ ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয় হওয়া সত্ত্বেও এনিয়ে বারবার নাক গলাচ্ছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প৷ তাতে আদৌ কিছু লাভ হবে না কিনা তা সময় বলবে৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here