sufal bangla bengali news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: দিন দিন নতুন নতুন মাইলস্টোন স্পর্শ করছে ঝাঁঝের রাজা পেঁয়াজ। সকালবেলা ঘুম থেকে উঠে বাজারে যাওয়ার আগে ভাবতে হচ্ছে আজ দাম কত হবে। আজ বাড়িতে অন্তত পাঁচশ গ্রাম পেঁয়াজ আনতে পারব তো। পেঁয়াজের এই ক্রমশ মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে বাজার তো গরম বটেই সরগরম রাজনীতিও। সোমবারই সকাল সকাল যদুবাবুর বাজার পরিদর্শন করেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ভবানীপুর এলাকার প্রসিদ্ধ এই বাজারে আচমকা হানা দিয়ে পেঁয়াজের দাম কত সেবিষয়ে খোঁজ নেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কথা বলেছিলেন বাজারের ক্রেতা ও বিক্রেতাদের সঙ্গে। লাগাম ছাড়া মূল্যে পেঁয়াজ বিক্রি হতে দেখে ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। কথা বলতে গিয়ে এক বিক্রেতাকে মুখ্যমন্ত্রী জিজ্ঞেস করেছিলেন, এখানে সুফল বাংলার গাড়ি আছে কিনা। উত্তরে তিনি বলেন আসে না। তার পরেই অবিলম্বে প্রশাসনকে বিষয়টি দেখতে নির্দেশ দেন মুখ্যমন্ত্রী।

২৪ ঘন্টা কাটতেই আজ সকালে সুফল বাংলার স্টল বসে ওই বাজারে। রাজ্য সরকারের এই স্টল থেকে ভর্তুকি সহ 59 টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ বিক্রি করছে রাজ্য। একই সঙ্গে ভর্তুকি দিয়ে ১৭ টাকা কেজি দরে আলু বিক্রি করা হচ্ছে ওই স্টল থেকে। মঙ্গলবার সকালে বাজারে সুফল বাংলার স্টল দেখে ভিড় জমান ক্রেতারা। আলু ও পেঁয়াজ কিনতে জমে যায় লম্বা লাইন।

গতকালই খড়গপুরে জনসভা থেকে কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে পেঁয়াজের মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে ক্ষোভ উগরে দেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, আলুর দাম বাড়লে আমরা ভর্তুকি দি। পেঁয়াজের দাম প্রতিদিন বাড়ছে। এটা তো কেন্দ্রের দেখার বিষয় এতদিন কি করছে কেন্দ্র? কি সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার? মঙ্গলবার সাত সকালে যদুবাবুর বাজারে সুফল বাংলার স্টলে মানুষের ভিড় এতোটাই বেড়ে যায় যে একটা সময় ভিড় সামলাতে রাস্তায় নামতে হয় পুলিশ বাহিনীকে। ব্যারিকেড দিয়ে লাইন সামলাতে দেখা যায় ভবানীপুর থানার পুলিশকে। রাজ্য সরকারের সুফল বাংলা স্টল থেকে সস্তায় আলু ও পেঁয়াজ কিনে খুশি ক্রেতারা। এমন স্টল বেশিরভাগ বাজারের জন্য দাবি করেছেন ক্রেতাদের অধিকাংশ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here