news bengali

মহানগর ওয়েবডেস্ক: মার্চের শুরুতে দিল্লি প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করেই ধর্মীয় সভার আয়োজন করেছিল তাবলিগ ই জামাত। সেই সভায় প্রায় নয় হাজার লোকের সমাগম ও সেখান থেকে ছড়ায় করোনার সংক্রমণ, যা ভারতে করোনা পরিস্থিতি একধাক্কায় বদলে দেয়। এবার একই রকম কাণ্ড পাকিস্তানেও ঘটিয়ে ফেলেছে তাবলিগ।

সম্প্রতি পাকিস্তানের পঞ্জাবে প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞাকে বুড়ো আঙুল দেখিয়েই রাইউইন্ড মারকাজে বার্ষিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে তাবলিগ। সেখানে স্বাভাবিক ভাবেই কয়েক হাজার অনুগামী যোগ দিয়েছিলেন। আর তার ফলে দুই লাখ জনসংখ্যার ওই শহর পুরোপুরি সিল করে দেওয়া হয়েছে, সংক্রমণের ভয়ে।

পাকিস্তানের ডন পত্রিকায় প্রকাশিত রিপোর্ট অনুযায়ী মার্চের দশ তারিখ নাগাদ ওই ধর্মীয় সভার আয়োজন করা হয়েছিল। আর তাতে যোগ দিয়েছিলেন ৮০,০০০ থেকে ৯০,০০০ লোক! যদিও আয়োজকদের দাবি ওই ধর্মীয় অনুষ্ঠানে আড়াই লক্ষ লোকের সমাগম হয়েছিল। এছাড়া বিভিন্ন দেশ থেকে ৩০০০ লোক সেখানে উপস্থিত হয়, যারা এখনও পাকিস্তানেই আটকে।

ইতিমধ্যেই নাকি ওই অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে ৫৩৯ জনের করোনা সংক্রমণ হয়েছে। আর এতেই পাক প্রশাসনের কপালে চিন্তার ভাঁজ চওড়া হয়েছে। তড়িঘড়ি ১০,২০০ জন জামাতিকে কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়েছে এবং বাকিদেরও খোঁজ চালাচ্ছে পাক প্রশাসন।

প্রসঙ্গত, ভারতে ইতিমধ্যেই ওই অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারীদের অনেকেই করোনায় আক্রান্ত। মৃত্যু হয়েছে বেশ কয়েকজনের। কিন্তু প্রশাসনের আশঙ্কা ওই জমায়েতের ফলে প্রায় ৯০০০ জন করোনায় আক্রান্ত হতে পারেন! স্থানীয় প্রশাসন সূত্রে খবর ওই জমায়েতে প্রায় ৭,৬০০ জন ভারতীয় ও ১৬০০ বিদেশি নাগরিক অংশ নিয়েছিলেন। উভয় মিলে সংখ্যাটা দাঁড়ায় প্রায় ৯০০০। বিশেষজ্ঞদের আশঙ্কা ওই ৯০০০ জনের করোনায় সংক্রামিত হওয়ার সম্ভাবনা তো রয়েছেই। কিন্তু আরও ভয়াবহ হলো তাদের মধ্যে যারা বাড়ি ফিরছিলেন, তারা আরো অনেক লোককে সংক্রামিত করতে পারেন। আর সেই কারণেই ওই সব ব্যক্তিদের খোঁজ চালাচ্ছে প্রতিটি রাজ্য প্রশাসন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here