মহানগর ওয়েবডেস্ক: মধ্যপ্রদেশ হাতছাড়া হয়েছে, রাজস্থানও হাতছাড়া হতে চলেছে। এবার নজরে মহারাষ্ট্র। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী রামদাস অটওয়ালে কোনও আড়াল না রেখেই বলে দিলেন মহারাষ্ট্রের জোট সরকারও আর বেশিদিন ক্ষমতায় থাকতে পারবে না। কেন্দ্রে এনডিএ শরিক রিপাব্লিকান পার্টি অব ইন্ডিয়া (অটওয়ালে)–র নেতা এই প্রসঙ্গে বলেন, উপ মুখ্যমন্ত্রী পদ থেকে অপসারিত শচিন পাইলটের উচিত প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী’কে দৃঢ় ভাবে সমর্থন জানানো। একটি ভিডিও বার্তায় কেন্দ্রীয় মন্ত্রী জানান, অশোক গেহলট তার উপ মুখ্যমন্ত্রীকে সামান্যতমও সম্মান জানাতেন না।

রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মধ্যে হিসেবনিকেশে এখনও পর্যন্ত যতটুকুই অনিশ্চয়তা থাকুক, অটওয়ালে নিশ্চিত শচিন পাইলট ও তার অনুগামীরা যদি বিজেপি’র হাত ধরে তাহলে রাজস্থানে কংগ্রেস ক্ষমতাচ্যূত হবেই। সামাজিক ন্যায় মন্ত্রকের প্রতিমন্ত্রী এই প্রসঙ্গেই ভবিষ্যতবাণী করেছেন, মহারাষ্ট্রের শিবসেনা–কংগ্রেস–এনসিপি জোট সরকারের পতন এখন শুধু সময়ের অপেক্ষা।

গত বছর নভেম্বরে শিবসেনা নেতা উদ্ধব ঠাকরেকে মুখ্যমন্ত্রী পদে রেখে মহারাষ্ট্রে জোট সরকার তৈরি হয়। জোট সরকার তৈরির আগে অবশ্য শিবসেনা, বিজেপি’র সঙ্গে্ সরকার গড়ার সম্ভাবনা নিয়ে আলোচনা চালিয়েছিল কিন্তু মুখ্যমন্ত্রীত্বের পদ শিবসেনা না ছাড়ায় বিজেপি জোট সরকার গঠনের প্রক্রিয়া থেকে বেরিয়ে যায়।

মধ্যপ্রদেশেও প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী কমলনাথের সঙ্গে সম্পর্ক তিক্ত হয়ে পড়ায় জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া ২২ জন বিধায়ক নিয়ে দল ত্যাগ করে বিজেপি’তে যোগ দেন। খুব সামান্য ব্যবধানে সরকার গঠন করা কংগ্রেস সরকারের স্বাভাবিক ভাবেই পতন ঘটে এবং শিবরাজ সিং চৌহানের নেতৃত্বে মধ্যপ্রদেশের শাসনক্ষমতা দখল করে বিজেপি। একই ভাবে কর্ণাটকেও কংগ্রেসের জোট সরকারের পতন ঘটে এবং বিজেপি ক্ষমতায় আসে।

গতকালই শিবসেনা মুখপত্র ‘সামনা’র সম্পাদকীয়তে রাজস্থানে রাজনৈতিক অস্থিরতা তৈরি করার জন্য বিজেপি’কে দায়ী করা হয়। সম্পাদকীয়তে বলা হয়েছে, সারা দেশে ঘোড়া কেনাবেচায় উৎসাহ জুগিয়ে বিজেপি দেশের সংসদীয় গণতন্ত্রের মরুভূমি রচনা করছে। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অটওয়ালের মন্তব্যের পর শিবসেনা কী প্রতিক্রিয়া জানায় সেই দিকেই এখন তাকিয়ে আছেন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here