ডেস্ক: বেলজিয়াম, সিঙ্গাপুর, আমেরিকা তো কখন লন্ডন, ভারত থেকে প্রায় ১২ হাজার কোটি টাকা প্রতারণার পর রীতিমতো বিদেশভ্রমণ করে বেড়াচ্ছেন পলাতক হিরে ব্যবসায়ী নীরব মোদী। আর এদিকে তাঁর খোঁজ পেতে কালঘাম ছুটে যাচ্ছে ভারতীয় গোয়েন্দাদের। কিন্তু প্রশ্ন উঠছিল, নীরব মোদীর বিরুদ্ধে রেড কর্ণার নোটিস ও ইন্টারপোলের কাছে অভিযোগ দায়ের হওয়া সত্ত্বেও কীভাবে দেশে দেশে পালিয়ে বেড়াচ্ছে এই অভিযুক্ত? এবার তদন্তকারী সংস্থার রিপোর্টে উঠে এল এক চাঞ্চল্যকর তথ্য। জানা গিয়েছে, এক নয় অন্তত এক ডজন ভারতীয় পাসপোর্ট রয়েছে নীরবের কাছে আর সেটাই আইনের ফাঁক গলে পালাতে সাহায্য করছে এই প্রতারককে।

গোয়েন্দা সূত্রের খবর, কিছুদিন আগে অবধি ব্রিটেনে ছিলেন নীরব মোদী, কিন্তু এখন তাঁর ঘাঁটি হয়েছে বেলজিয়াম। আর এরপরই গোয়েন্দাদের তরফে খোঁজখবর নিতেই বেরিয়ে আসে চাঞ্চল্যকর তথ্য। জানা গিয়েছে, ৬ টি পাসপোর্ট ইস্যু করা হয়েছে নীরব মোদীর নামে। যার মধ্যে দুটি সক্রিয় রয়েছে এবং বাকিগুলি নিস্ক্রিয়। শুধু তাই নয় গোয়েন্দাদের তরফে আরও জানা গিয়েছে, ওই দুটি পাসপোর্টের একটিতে শুধুমাত্র নীরব মোদীর নাম ও টাইটেল রয়েছে এবং অন্য একটিতে শুধুমাত্র রয়েছে নাম। আর এই পাসপোর্ট দিয়েই ৪০ সপ্তাহ ব্রিটেন থাকার ভিসা মঞ্জুর করেছিলেন নীরব। এতদিন আইনের এই ফাঁক গলেই পালাতে সক্ষম হয়েছিল প্রতারক নীরব। তবে এবার তাঁর বিরুদ্ধে একাধিক পাসপোর্ট রাখার অভিযোগে নতুন করে এফআইআর দায়ের করার চিন্তাভাবনা শুরু করেছে তদন্তকারী দল সিবিআই ও ইডি। শুধু তাই নয় এর আগে, নীরবের বিরুদ্ধে জারি করা রেড কর্নার নোটিস ও ইন্টারপোলের কাছে দায়ের করা নতুন অভিযোগে তাঁর সমস্ত পাসপোর্ট বাতিল করার বিষয়টিও উল্লেখ করা হবে।

উল্লেখ্য, পিএনবি ব্যাঙ্ক থেকে প্রায় ১২ হাজার কোটি টাকা ঋণ খেলাপির পর দেশ ছাড়া হয়েছেন হিরে ব্যবসায়ী নীরব মোদী ও তাঁর মামা মেহুল চোকসি। ইতিমধ্যেই তাঁদের বিরুদ্ধে বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করার পাশাপাশি জারি করা হয়েছে ওয়ারেন্ট। এবার বিদেশমন্ত্রকের মাধ্যমে ইন্টারপোলকে এই দুই পাসপোর্ট প্রত্যাহারের বিষয়টি জানানোর পাশাপাশি, নীরবকে সরকারিভাবে পলাতক ঘোষণা করার পক্রিয়াও শুরু করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here