ডেস্ক: তেলের ঝাঁঝে নাকের জলে-চোখের জলে গোটা দেশ। বিরোধী চাপে সরকার কোণঠাসা, কিন্তু তেলের তাতে কি আসে যায়? হুঁশিয়ারি, ধমকানি, বিরোধী চাপ ভোটের আগে সরকারের অস্বস্তি বাড়িয়ে ফের বাড়ল পেট্রোল ডিজেলের দাম।

শুক্রবার বাজার খোলার সঙ্গে সঙ্গে জ্বালানী তেলের নতুন যে দাম উঠল তাতে ফের চক্ষু চড়কগাছ দেশবাসীর। নতুন দর অনুযায়ী চেন্নাইতে ৭ পয়সা বেড়েছে তেলের দাম। নতুন দাম অনুযায়ী চেন্নাইতে পেট্রোল এখন ৮৫.৪৮ টাকা। দিল্লিতে প্রতি লিটার পেট্রলের দাম ৮২.৩২ টাকা৷ ডিজেলের দাম দাঁড়িয়েছে ৭৩.৮৭ টাকা। তেলের দাম সবাইকে ছাড়িয়ে গিইয়েছে বাণিজ্য নগরী মুম্বইতে। সেখানে পেট্রোলের দাম ৮৯.৬৯ টাকা ও ডিজেল ৭৮.৪২ টাকা। কলকাতাতেও পেট্রোলের দাম বেড়ে হয়েছে ৮৪.১৬ টাকা। ডিজেলের দাম ৭৫.৭২। তবে এই বৃদ্ধির কারণ হিসাবে বরাবরের জন্য তুলে রাখা সাফাইটা গেয়ে দিয়েছেন কেন্দ্রীয় পেট্রোলিয়াম মন্ত্রী ধর্মেন্দ্র প্রধান। বিশ্ব বাজারে অপরিশোধিত তেলের দাম বৃদ্ধির ফলেই দেশের বাজারে চড়চড়িয়ে বাড়ছে জ্বালানির দাম, এর পিছনে সরকারের কোনও হাত নেই। এবং দাম নিয়ন্ত্রন করাও সরকারের আওতায় নেই।

বিগত প্রায় একমাস ধরে যেভাবে লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়েছে তেলের দাম, তাতে বিরোধী চাপ বাড়লেও পরিষ্কার হাত তুলে দিয়েছে কেন্দ্র। সরকারের তরফে স্পষ্ট জানিয়ে দেওয়া হয়েছে এর পিছনে আমাদের কোন হাত নেই। দেশের অন্যান্য রাজ্যেগুলি তেলের উপর থেকে ভ্যাট কিছুটা কমিয়ে মানুষের সাধ্যের মধ্যে আনার চেষ্টা করলেও ঝাঁঝ কিছুতেই কমছে না তেলের। এদিকে তেলের লেজ ধরে দাম বেড়ে চলেছে অন্যান্য নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদির।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here