মহানগর ওয়েবডেস্ক: সুশান্ত সিং রাজপুতের পোস্ট–মর্টেম এবং ভিসেরা রিপোর্ট পুনর্মূল্যায়ন করে অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অব মেডিকেল সায়েন্সের একটি দল তাদের রিপোর্ট জমা দিল কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার কাছে। অভিনেতার মৃত্যু নিয়ে বিতর্ক তৈরি হলে তদন্তের ভার দেওয়া হয় সিবিআই’কে। ১৪ জুন বান্দ্রায় নিজের ফ্ল্যাটে সুশান্ত সিং রাজপুতের দেহ ঝুলন্ত অবস্থায় পাওয়া যায়।

প্রাথমিক ভাবে আত্মহত্যা হিসেবে ধরে নিয়েই মুম্বই পুলিশের পক্ষ থেকে তদন্ত করা হয়। কিন্তু পরবর্তীকালে অভিনেতার পরিবারের পক্ষ থেকে আত্মহত্যার বিষয়ে সন্দেহ প্রকাশ করা হলে বিহার পুলিশ একটি তদন্ত দল পাঠায়। এই সময় থেকেই অভিনেতার মৃত্যু তদন্ত সিবিআই–কে দেওয়ার দাবি ওঠে বিভিন্ন মহলে থেকে। অবশেষে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা তদন্তের ভার নিলে পূর্বাপর সমস্ত বিষয়টি খতিয়ে দেখা শুরু হয়। তারই অংশ হিসেবে রাজপুতের পোস্ট–মর্টেম রিপোর্ট ও পড়ে থাকা ২০ শতাংশ ভিসেরা নিয়ে পুনর্মূল্যায়ন করা শুরু করে এআইআইএমএস–এর একটি দল।

সোমবার সন্ধেবেলা জমা দেওয়া রিপোর্টটি কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা প্রাপ্ত অন্যান্য তথ্যের সঙ্গে পাশাপাশি রেখে বিশ্লেষণ করে জানার চেষ্টা করবে রাজপুত আত্মহত্যা করেছিলেন নাকি তাকে হত্যা করা হয়েছিল। সূত্র মারফত জানা গিয়েছে, এআইআইএমএস–এর রিপোর্টটি খুবই স্পষ্ট এবং তার মধ্যে কোনও ধোঁয়াশা নেই। যদিও এই বিষয়ে শেষ কথা বলতে পারে একমাত্র সিবিআই।

এই পুনর্মূল্যায়নকারী দলের প্রধান ডাঃ সুধীর গুপ্ত জানিয়েছেন, সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যু তদন্তে এআইআইএমএস ও সিবিআই–এর মধ্যে একটি চুক্তি হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে আরও পর্যালোচনা দরকার বলে তিনি মনে করেন। এই প্রসঙ্গে সংবাদসংস্থাকে ডাঃ গুপ্ত বলেন, ‘’বিষয়টির যৌক্তিক আইনি সিদ্ধান্তে পৌঁছনর জন্য কিছু আইনি বিষয়ের দিকে নজর দেওয়া দরকার।‘’

এর আগে সুশান্ত সিং রাজপুতের পরিবারের আইনজীবী জানিয়েছিলেন এআইআইএমএস–এর চিকিৎসকদের রিপোর্ট অনুযায়ী অভিনেতার মৃত্যু হয়েছিল শ্বাসরোধ করার জন্য। যদিও ডাঃ সুধীর গুপ্ত এই দাবিটি সঠিক নয় বলে জানিয়েছেন। অভিনেতার পরিবারের আইনজীবী সুশান্ত’র মৃত্যু তদন্তে অনর্থক বিলম্ব করা হচ্ছে বলে সিবিআই–এর সমালোচনা করেছিলেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here