School children arrive to watch the proceedings of Indian parliament in New Delhi December 7, 2012. The Indian government won a second parliament vote on Friday on allowing foreign supermarkets into the country, paving the way for Prime Minister Manmohan Singh to press ahead with more reforms, including freeing up a cash-strapped insurance sector. REUTERS/Stringer (INDIA - Tags: POLITICS BUSINESS FOOD)

ডেস্ক: সবে মাত্র বিয়ে সেরেছেন তিনি। গাঁটছড়া বাঁধার ঠিক পরেই নববিবাহিত দম্পতির সাইকেল ভ্রমণ দৃশ্য ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল দুনিয়ায়। প্রেম খুনসুটির মাঝে লালু পরিবারে রাজনীতি উঁকি মারবে না তাই আবার হয় নাকি? লালুপুত্র তেজ প্রতাপ রাজনীতির আঙিনায় পা রেখেছেন অনেক আগেই। এবার তেজপ্রতাপকে বিয়ে দিয়ে, পুত্রবধূর সঙ্গে সঙ্গে ঘরে আরজেডির নতুন প্রার্থীও আনলেন লালু। বিহারের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী লালুপ্রসাদ যাদবের পুত্রবধু ঐশ্বর্য রাই। জানা যাচ্ছে ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনে বিহারের ছাপড়া কেন্দ্র থেকে আরজেডির সম্ভাব্য প্রার্থী হতে চলেছেন তিনি।

এপ্রসঙ্গে আরজেডির এক উচ্চপদস্থ নেতা রাহুল তিওয়ারির বলেন, রাজ্যবাসী চায় ঐশ্বর্য লোকসভা ভোটে বিহারের ছাপড়া কেন্দ্র থেকে প্রার্থী হোক। এবং ঐশ্বর্য নিজেও ছাপড়ার মেয়ে সেখানে ভোটে দাড়ালে তাঁর জয় নিশ্চিত। তবে তাঁকে ভোটে দাড় করানো হবে কি না, সে বিষয়ে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন আরজেডি প্রধান লালুপ্রসাদ যাদব। তবে ঐশ্বর্য ভোটে দাড়াবেন কিনা সে বিষয়ে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত হওয়ার আগেই আরজেডিকে তোপ দেগেছে বিহারে নীতীশের জনতা দল। তাঁদের কথায়, লালু শুধু মাত্র নিজের ঘরের লোককের প্রার্থী করে টিকিট দেন। এদিকে যারা সর্বক্ষণ দলের জন্য সংরাম করে চলেছে তাঁরা থাকে বঞ্চিত। বিহারে এরাই দুর্নীতিগ্রস্ত নোংরা রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত।

তবে ঐশ্বর্য যে রাজনীতিতে আসবেন সে সম্ভাবনা প্রায় নিশ্চিত। ১২ মে বিহারের অন্যতম রাজনৈতিক পরিবার লালুর ঘরে এলেও, রাজনীতির রক্ত তাঁর শরীরে বইছে অনেক আগে থেকেই। বিহারের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী দারোগা প্রসাদ রাইয়ের নাতনি ঐশ্বর্য রাই। ফলে তাঁর রাজনীতিতে আসাটা শুধু সময়ের অপেক্ষা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here