kolkata bengali news

ডেস্ক: আসন নিয়ে বোঝাপড়া না হওয়ায় গাঠবন্ধনে থাকল না নিশাদ পার্টি। অখিলেশ, মায়াবতী, অজিত সিংদের সঙ্গে জোট হল না এই ওবিসি সংগঠনের। এর ফলে সমাজবাদী পার্টি, বহুজন সমাজ পার্টি ও রাষ্ট্রীয় লোকদলের জোট ধাক্কা খেতে পারে বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল। ২০১৮ লোকসভা উপনির্বাচনে উত্তরপ্রদেশের গোরক্ষপুর ও ফুলপুর লোকসভা কেন্দ্রে জয়ী হয় এসপি-বিএসপির জোট। মুখ্যমন্ত্রী আদিত্যনাথ যোগীর খাসতালুক গোরক্ষপুর ও উপমুখ্যমন্ত্রী কেশব মৌর্যের কেন্দ্র ফুলপুর হাতছাড়া হয় বিজেপির। যোগীর দুদশকের গড় গোরক্ষপুরে বিজয়ী হন নিশাদ পার্টির নেতা প্রবীণ নিশাদ। যদিও জোট সমর্থিত প্রবীণ নিশাদ প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন সমাজবাদী পার্টির প্রতীকে। আর তাঁকে ওবিসি নিশাদ সম্প্রদায়ের মানুষ ঢেলে সমর্থন করেন। কিন্তু লোকসভা নির্বাচনে গোরক্ষপুর কেন্দ্র আর নিশাদ পার্টিকে ছাড়েনি অখিলেশের দল। প্রবীণ নিশাদকে প্রার্থীও করেনি অখিলেশ-মায়বতীরা। গোরক্ষপুর লোকসভা কেন্দ্রে প্রার্থী হিসাবে দলের এক নেতার নাম ঘোষণা করেছেন অখিলেশ যাদব। ওই নেতা নিশাদ সম্প্রদায়ের।

উত্তরপ্রদেশের রাজনীতিতে যোগীর গড় দখল করার পরও প্রবীণ নিশাদের টিকিটের দাবি মানেননি অখিলেশ-মায়বতীরা। নিশাদ পার্টিকে নিজস্ব প্রতীকে নির্বাচনী প্রতিদ্বন্দ্বিতাতেও আপত্তি করেছেন অখিলেশ। এতে ক্ষুব্ধ হয় নিশাদ পার্টির নেতৃত্ব। ফলে এসপি, বিএসপি, মায়বতীদের গাঠবন্ধনে থাকেনি নিশাদ পার্টি। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, ওবিসি নিশাদ পার্টির সঙ্গে গাঠবন্ধন না হওয়ায় আখেরে সুবিধা হবে বিজেপির। ক্ষতি হবে এসপি, বিএসপি ও আরএলডি জোটের।

উল্লেখ্য, দুদিন আগে লখনউতে এক সাংবাদিক সম্মেলনে নিশাদ পার্টির নেতাদের পাশে বসিয়ে ঘোষণা করেন, তাঁদের গাঠবন্ধনের একটি অংশ হল নিশাদ পার্টি। অথচ, প্রবীণ নিশাদ ফের গোরক্ষপুর কেন্দ্র থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতার দাবি জানালেও তা নিয়ে কোনও ঘোষণা করেননি অখিলেশ। এর ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে নিশাদ পার্টির সুপ্রিমো উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের সঙ্গে দেখা করেন। বদলে যায় রাজনৈতিক সমীকরণ। নিশাদ পার্টির মিডিয়া ইনচার্জ রিতেশ নিশাদ জানান, অখিলেশ বলেছিলেন, তিনি আমাদের দলের জন্য আসন ঘোষণা করবেন। কিন্তু তিনি পোস্টার, চিঠিপত্র সহ কোনও জায়গায় আমাদের নামও রাখেননি। এটা দেখে দলীয় কর্মীরা, কর্তৃপক্ষ এবং কোর কমিটি সকলেই মর্মাহত হয়েছেন। দল এককভাবে লড়তে পারে বা অন্য কারও সঙ্গে জোটও করতে পারে বলেও জানান তিনি। রিতেশ নিশাদ আরও জানান, সমাজবাদী পার্টির সঙ্গে কখনই জোট করবে না নিশাদ পার্টি। নিজস্ব প্রতীকে প্রতিদ্বন্দ্বিতার দাবি ছিল নিশাদ পার্টির। কিন্তু সমাজবাদী পার্টি তাতে রাজি হয়নি। এনিয়েই দুপক্ষের মধ্যে সংঘাত শুরু হয়। এদিকে দলীয় কর্মীরাও সমাজবাদী পার্টির প্রতীকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার ক্ষেত্রে তীব্র আপত্তি জানাতে শুরু করে। এদের অনেকেই দল ছেড়ে দিতে থাকে। এই পরিস্থিতিতে গতচ বৃহস্পতিবার নিশাদ পার্টির সভাপতি সঞ্জয় নিশাদ লখনউ যান। তখন তিনি জানান, এসপি-বিএসপি-আরএলডি জোটের সঙ্গে তারা থাকবেন না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here