সাক্ষী ইতিহাস, লর্ডসে টস হারলেই মিলেছে বিশ্বসেরার মুকুট!

0
187

মহানগর ওয়েবডেস্ক: লর্ডসে শুরু হয়ে গিয়েছে ২০১৯ বিশ্বকাপের ফাইনাল ম্যাচ। খেতাবি লড়াইয়ে মুখোমুখি হয়েছে আয়োজক দেশ ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ড। শেষ ম্যাচে কোন দেশের মাথায় উঠবে বিশ্বসেরার মুকুট, তা নিয়ে নানা মুনির নানা মত। কারও বাজি কেন উইলিয়ামসনের নিউজিল্যান্ড আবার কারও কাছে ইয়ন মর্গানের ইংল্যান্ডই বিশ্বকাপ জেতার সেরা দাবীদার।

ভারত ছিটকে যাওয়ায় ভারতীয় সমর্থকরা বেশ আশাহত হলেও, ফাইনাল ম্যাচ কারা জেতে, এই নিয়ে কিন্তু পাড়ার রকে বা চায়ের দোকানে তর্কের তুফান উঠেছেই। শেষমেশ কোন দল জিতবে, তা আর কয়েক ঘণ্টা বাদেই পরিষ্কার হয়ে যাবে। কিন্তু মাঠে নামার আগে ইয়ন মর্গানরা যদি একবার ইতিহাস বইটা ঘেঁটে দেখে থাকেন, তাহলে ব্রিটিশদের দন্ত বিকশিত হতে বাধ্য।

কিন্তু কেন? কারণটা খোলসা করা যাক। ক্রিকেটের মক্কা লর্ডসে এর আগে চারবার বিশ্বকাপের ফাইনাল আয়োজিত হয়েছে, ১৯৭৫, ১৯৭৯, ১৯৮৩ ও ১৯৯৯ সালে। উক্ত বিশ্বকাপগুলিতে চ্যাম্পিয়ন হয় ক্লাইভ লয়েডের ওয়েস্ট ইন্ডিজ (১৯৭৫, ১৯৭৯), কপিল দেবের ভারত (১৯৮৩) ও স্টিভ ওয়ার অস্ট্রেলিয়া (১৯৯৯)। মজার ব্যাপার হল প্রতিটি ম্যাচেই যে দল টস হেরেছিল, সেই দলই শেষমেশ চ্যাম্পিয়ন হন। আর ঘটনাক্রমে আজ এই বিশ্বকাপের ফাইনালেও কিন্তু টসে হেরেছে ইংল্যান্ড।

এই তথ্য দেখে যদি ইংরেজ সমর্থকরা খুশি হন, তাহলে নিউজিল্যান্ড সমর্থকদেরও হতাশ হওয়ার খুব বেশি কারণ কিন্তু নেই। ইতিহাস তাদের ক্ষেত্রেও বেশ সদয়। কীভাবে? লর্ডসের মাঠে এর আগে যে চারবার ফাইনাল হয়েছে, তার মধ্যে তিনবার প্রথমে যে দল ব্যাট করেছে, সেই দলের মাথায় উঠেছে বিশ্বসেরার শিরোপা। যেমন, ১৯৭৫ ও ১৯৭৯ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজ এবং ১৯৮৩ সালে ভারত। তবে ১৯৯৯ সালে প্রথমে ব্যাট করেও পাকিস্তান হেরে গিয়েছিল। ফলে, ইতিহাস যদি মাথায় থাকে, তাহলে কিন্তু ‘গোঁফে তেল’ দিতেই পারেন উইলিয়ামসন, গাপ্টিল, ফার্গুসনরা।

 

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here