মহানগর ওয়েবডেস্ক: শ্রীনগরের লাল চকের ক্লক টাওরারের মাথায় ওড়া জাতীয় পতাকার একটি ছবি বিজেপি নেতা কপিল মিশ্র আজ টুইট করেন। তার সেই টু্ইটে স্যোশাল মিডিয়ায় প্রায় ঝড় ওঠে। অধিকাংশ মানুষই পরিবর্তিত কাশ্মীর নিয়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন খুব স্বাভাবিক কারণেই। কিন্তু বেলা কিছুটা গড়াতেই বিজেপি নেতার বিরুদ্ধে ভুয়ো ছবি ছড়ানোর অভিযোগ ওঠে।

গত বছর ৫ অগস্ট জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল করে জম্মু, কাশ্মীর ও লাদাখকে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে পরিণত করার পর এই পরিবর্তন ঘটে গিয়েছে এমনই একটি বার্তা দেওয়ার সম্ভবত চেষ্টা করেছিলেন বিজেপি নেতা। কপিল মিশ্রর টুইটারের ছবিটি নিয়ে লাদাখের বিজেপি সভাপতি জামইয়াং সেরিং নামগিয়াল আর একটি স্বতন্ত্র টুইট করেন। সেখানে তিনি লেখেন ‘’ভারত বিরোধী প্রচারের প্রতীক’’ এখন ‘’জাতীয়তাবাদের মুকুট’’।

নামগিয়াল লিখেছেন, ‘’২০১৯ সালের ৫ অগস্টের পর কী বদল ঘটেছে? জেহাদি ও পরিবার তন্ত্রের রাজনীতিবিদরা শ্রীনগরের যে লাল চককে ভারত বিরোধী প্রচারের প্রতীক করে তুলেছিল আজ সেই জায়গা জাতীয়তাবাদের মুকুটে পরিণত হয়েছে।‘’

কপিল মিশ্রের টুইটটি ৭০০০ বার রিটুইট হয়েছে এবং ৩৭ হাজারের বেশি মানুষ পছন্দ করেছেন। নামগিয়ালের টুইটটিও রিটুইট হয়েছে ১৬০০ বার এবং পছন্দ করেছেন ৮০০০ মানুষ। অনেকেই ছবিটিকে ‘’নতুন জম্মু ও কাশ্মীর’’ লিখে শেয়ার করেছেন।

খুঁটিয়ে পরীক্ষা করলে বোঝা যাচ্ছে ছবিটিতে ফটোশপ করা হয়েছে বলে জানিয়েছে ‘দ্য প্রিন্ট’ ও ‘দ্য কুইন্ট’ নামের দুটি সংবাদ মাধ্যম। তারা জানিয়েছে বর্তমান লাল চকের চিত্রের সঙ্গে বিজেপি নেতার করা টুইটের ছবির কোনও মিল নেই। ক্লক টাওয়ারের আশেপাশের বাড়িগুলি সারিয়ে সব সাদা রঙ করে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু ছবিতে দেখা যাচ্ছে সেগুলির পুরনো চেহারা।

এই মুহূর্তে লাল চকে প্রচুর পরিমাণে নিরাপত্তা রক্ষী মোতায়েন রয়েছে এবং নিষেধাজ্ঞা ও কোভিড–১৯ এর কারণে অধিকাংশ দোকানপাটই বন্ধ রয়েছে। যদিও কপিল মিশ্র’র টুইট করা ছবিতে দেখা যাচ্ছে লোকজন স্বাভাবিক ভাবে হাঁটাচলা করছে এবং দোকানও সব খোলা। এই উল্লেখযোগ্য পার্থক্যগুলি নজরে এনেই সংবাদ মাধ্যমের পক্ষ থেকে ছবিটিকে ভুয়ো বলে দাবি করা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here