news bengali

মহানগর ওয়েবডেস্ক: তাঁর সরকার লকডউনের মধ্যেই মদের দোকান খোলার আর্জি জানিয়েছিল কিন্তু কেন্দ্রীয় সরকার সে প্রস্তাব পত্রপাঠ খারিজ করে দেয়। এবার পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী কেন্দ্রের কাছে তার সরকারের করা আবেদন খারিজের কারণ জানতে চাইলেন।

একটি সংবাদ মাধ্যমের কাছে দেওযা সাক্ষাৎকারে অমরিন্দর সিং বলেন, তিনি কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে করোনাভাইরাস সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়া ও মদ বিক্রির মধ্যে আন্তঃসম্পর্কটি জানতে চান। যদি সবজি বিক্রি করলে সংক্রমণ না ছড়ায় তাহলে মদের ক্ষেত্রে বাধা কোথায়? ”মদ বিক্রি ও করোনাভাইরাসের সম্পর্ক কী? করোনাভাইরাস ছড়ায় লালারস থেকে। আপনারা প্রকাশ্যে সবজি বিক্রির অনুমতি দিয়েছেন। তাহলে সিল করা বোতলে মদ বিক্রি নিষিদ্ধ করার যুক্তি কি? এর ফলে রাজ্যের রাজস্ব আদায়ে ক্ষতি হচ্ছে” বলে জানান পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী।

পঞ্জাব সরকারের অনুরোধ পাওয়ার পর কেন্দ্রের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক তাদের জানিয়ে দেয় লকডাউনের দ্বিতীয় দফায় যে সংশোধিত গাইড লাইন তৈরি করা হয়েছে তার মধ্য স্পষ্ট করে লেখা রয়েছে দেশের কোথাও কোনও মদের দোকান খোলা রাখা যাবে না। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের এক উচ্চ পর্যায়ের আধিকারিক পঞ্জাব সরকারের কাছ থেকে আসা এই আবেদনের কথা জানান এবং তার সঙ্গে এও জানান যে পঞ্জাব সরকারের এই আবেদন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক সঙ্গে সঙ্গে খারিজ করে দিয়েছে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক থেকে চলতি মাসের ১৫ তারিখে জারি হওয়া সংশোধিত গাইড লাইনে স্পষ্ট ভাবে লেখা রয়েছে লকডাউন চলাকালীন দেশে মদ ও তামাকজাত দ্রব্য বিক্রি করা কঠোর ভাবে নিষিদ্ধ। এই সময়ে কোনও পানশালা খুলতেও অনুমতি দেওয়া হবে না বলে জানানো হয়েছিল। সেই গাইড লাইন প্রকাশ হওযার পর উত্তর–পূর্বের দুটি রাজ্য, অসম ও মেঘালয় সরকার রাজ্যে মদ বিক্রির ওপর নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়। কিন্তু কেন্দ্রীয় সরকারের নির্দেশে আবার তা বন্ধ হয়ে যায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here