kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি: একদিকে, চলছে ভোট। আর সেই নিয়ে ব্যস্ত প্রশাসন। আর এরই মাঝে একটি অমানবিক ঘটনা ঘটল। বর্ধমানের নবাবহাট জাতীয় সড়কের পাশে প্রায় চার ঘণ্টা রাস্তার পাশেই পড়ে রইল মৃতদেহ। পঞ্চম দফা ভোটের দিনে এই অমানবিক ছবি ধরা পড়ল বর্ধমানে। জানা গিয়েছে, উত্তরপ্রদেশের গোরক্ষপুর থেকে একটি অ্যাম্বুল্যান্সে করে মৃতদেহ নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল নদিয়ায়। মৃত ব্যক্তির নাম প্রকাশ সরকার বয়স (৩৫)। বাড়ি নদিয়া জেলার ভীমপুর থানার মহেশপুর গ্রামে। মৃত ব্যক্তির আত্মীয় দীপালি সরকার জানান, তিনি বিহারে থাকেন। তার কাছে ফোন আসে যে উত্তরপ্রদেশের গোরক্ষপুরে দুর্ঘটনায় মারা গিয়েছেন প্রকাশ সরকার। তড়িঘড়ি তিনি গোরক্ষপুরের উদ্দেশে রওনা হয়ে যান। সেখানে গিয়ে দেখেন তার দাদা মারা গিয়েছেন। সেখান থেকে একটা অ্যাম্বুল্যান্স ভাড়া করেন ২৭ হাজার টাকায়।

এরপর অ্যাম্বুল্যান্সে করে মৃত দাদাকে নিয়ে তিনি নদিয়ার মহেশপুরে গ্রামের বাড়ির উদ্দেশে বেরিয়ে পড়েন। তিনি অভিযোগ করেছেন, বর্ধমানের নবাবহাট এলাকায় আসার পর ওই অ্যাম্বুল্যান্স চালক তাদের মারধর করে কাগজপত্র ছিনিয়ে নিয়ে মৃতদেহটি নামিয়ে পালিয়ে যায়। তাদের কাছে বাকি টাকা যা ছিল সমস্ত কিছু কেড়ে নেয় ওই অ্যাম্বুল্যান্সের চালক। দীপালি সরকার আরও জানিয়েছেন, সকাল দশটা থেকে মৃত দাদাকে নিয়ে এই ভাবে পড়ে রয়েছেন। কেউ সাহায্য করতে এগিয়ে আসেননি।

স্থানীয় এক যুবক জিয়াউর রহমান জানান, তিনি দেখতে পান এক ভদ্রমহিলা মৃত এক ব্যক্তিকে নিয়ে বসে আছেন। তিনি বর্ধমান থানায় বিষয়টি জানান। এরপর প্রশাসনিক তৎপরতায় মৃতদেহ নিয়ে রওনা দেন দীপালিদেবী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here