kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি, বারাসত: কখনও কোভিড পজিটিভ, কখনও কোভিড নেগেটিভ। এই ভাবেই রোগীকে নিয়ে হাসপাতাল থেকে হাসপাতালে ঘুরে বেড়ালেন অ্যাম্বুল্যান্স চালক। আবারও রোগী ফেরানোর দৃষ্টান্ত বারাসত শহর ও জেলা হাসপাতাল থেকে। চিকিৎসা ব্যবস্থা প্রশ্নচিহ্নের মুখে। কোভিড ছাড়াও অন্য রোগে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার যে নির্দেশ প্রশাসন দিয়েছিল সেই নির্দেশকে কার্যত ভূলুণ্ঠিত হতে দেখা গেল জেলার স্বাস্থ্য ব্যবস্থায়।

সোদপুর ঘোলার বাসিন্দা বছর চুয়াত্তরের এক বৃদ্ধা বুকে সংক্রমণ নিয়ে ব্যারাকপুরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হন গত মাসের ২১ তারিখ। পরে তার করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসে। এরপর বারাসাতের GNRC কোভিট হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি। ২৫ তারিখ তার করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসলেও চিকিৎসা করার পর গতকাল তার রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। এরপর বুকে অন্য সংক্রমণ থাকার কারণে গতকাল রাতে তাকে বারাসতের ওই হাসপাতাল থেকে স্থানান্তরিত করা হয় আরজি কর হাসপাতালে। পরিবারের সদস্যদের না জানিয়ে অ্যাম্বুল্যান্সে করে পাঠানো হয়।

কিন্তু এরপর শুরু হয় বিপত্তি। একে একে কলকাতার একাধিক হাসপাতাল ঘোরার পর ও পরে বারাসতের জেলা হাসপাতালে ফিরে আসলে ভর্তি নেওয়া হয়নি ওই মহিলাকে। সারারাত একের পর এক হাসপাতাল থেকে ফেরত দেওয়া হয় তাকে। সকালে অ্যাম্বুল্যান্সের চালক পরিবারের সদস্যদের জানান, তাদের রোগীকে কোনও হাসপাতাল ভর্তি নেয়নি। সেই খবর পেয়ে সকালে বাড়ির লোকেরা বারাসতের ওই করোনা হাসপাতালে সামনে এসে বিক্ষোভ দেখানোর পর ভর্তি করা হয় তাকে। তবে তার কোভিড রিপোর্ট নেগেটিভ এলেও কেন তার চিকিৎসা নিয়ে এত বিভ্রান্তি হল, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। প্রশ্ন উঠছে মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশের কার্যকারিতা নিয়েও।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here