মহানগর ওয়েবডেস্ক: আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল ইন্ডিয়া মঙ্গলবার থেকে ভারতের সমস্ত কাজ বন্ধ করে দিয়েছে। আর এই কাজ বন্ধ করার কারণ হিসেবে সরাসরি সরকারের দিকে অভিযোগের আঙুল তুলেছেন এই সংস্থা। সংস্থার অভিযোগ ভারত সরকার চলতি বছরের শুরুতে এক তদন্তের মাধ্যমে তাদের সমস্ত অ্যাকাউন্ট ফ্রিজ করে দিয়েছে। এই ঘটনার কারণে বহু সংখ্যক কর্মী ছাঁটাই করতে হয়েছে সংস্থাকে। মোদী সরকার অন্যায় ভাবে তাদের বিরুদ্ধে উঠে পড়ে লেগেছে এমনটাও অভিযোগ তুলেছে সংস্থা। যদিও সরকারের অভিযোগ, এই সংস্থা বৈদেশিক সহায়তা আইনে কোনও রেজিস্ট্রেশন করায়নি। যা বিদেশি অর্থ সাহায্যের জন্য অতি আবশ্যক।

মঙ্গলবার অ্যামনেস্টির তরফে একটি প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, ভারত সরকার অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল ইন্ডিয়ার সমস্ত ব্যাংক অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দিয়েছে। সরকারের এই পদক্ষেপ সংস্থা জানতে পারে গত ১০ সেপ্টেম্বর। এরপরই সংস্থা সমস্ত কাজকর্ম কার্যত বন্ধ হয়ে যায়। এবং বাধ্য হয়েই নিজেদের কর্মী ছাঁটাই করতে হয় সংস্থাকে। বর্তমানে এই সংস্থার সমস্ত কাজকর্ম এমনকি রিসার্চ বন্ধ রয়েছে বলে জানানো হয়েছে। সংস্থার দাবি তারা সব রকম ভারতীয় এবং আন্তর্জাতিক আইন পালন করেছে। তাসত্ত্বেও ভারত সরকার উঠে পড়ে লেগেছে এই সংস্থার কাজে ব্যাঘাত দিতে। ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত অভিযোগের ভিত্তিতে মানবাধিকার সংস্থাগুলির বিরুদ্ধে ভারত সরকার ষড়যন্ত্র করছে বলেও অভিযোগ তাদের।

এ প্রসঙ্গে অ্যামনেস্টির এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর অবিনাশ কুমার বলেন, অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল ইন্ডিয়ার বিরুদ্ধে সরকারের পদক্ষেপ হঠাৎ করে নয়। লাগাতার দু’বছর ধরে তাদের বিরুদ্ধে নানারকম পদক্ষেপ করে চলেছে সরকার। সংস্থার অভিযোগ, সরকারের স্বচ্ছতা, দিল্লি দাঙ্গায় দিল্লি পুলিশ ও সরকারের ভূমিকা, জম্মু-কাশ্মীরে মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিরুদ্ধে সরব হওয়ার জেরেই ইবি সহ একাধিক সরকারি তাদের বিরুদ্ধে উঠে পড়ে লেগেছে। তারই ফল বর্তমান পরিস্থিতি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here