news corona

মহানগর ওয়েবডেস্ক: করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার পর সবচেয়ে আগে সর্তকতা অবলম্বন করতে বলা হয় বয়স্ক মানুষদের। কারণ বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই দেখা গিয়েছিল বা এখনও দেখা যাচ্ছে যে বয়স্ক লোকেরাই বেশি আক্রান্ত হচ্ছেন এই ভাইরাসে। শুধুমাত্র একটি বা দুটি দেশ নয় সমগ্র বিশ্বেই এই ঘটনা ঘটছে। এইভাবেই বেলজিয়ামের এক ৯০ বছরের বৃদ্ধা আক্রান্ত হন করোনাভাইরাসে। হাসপাতালে ভর্তি থাকাকালীন তাকে ভেন্টিলেটর দেওয়ার প্রস্তুতি নেন ডাক্তাররা। কিন্তু তিনি ভেন্টিলেটর নেননি। না নেওয়ার কারণেই হয়তো তাঁর মৃত্যু হল। কিন্তু তিনি কেন ভেন্টিলেটার নিলেন না তা জানার পরে মানুষ কুর্নিশ জানাচ্ছেন ওই বৃদ্ধাকে।

ভেন্টিলেটর নিলে হয়তো তিনি বেঁচে যেতেন এমন ধারণা করা হচ্ছে। কিন্তু বেলজিয়ামের ওই বৃদ্ধা ভেন্টিলেটর না নিয়ে ডাক্তারদের যে উপদেশ দিয়ে গেলেন তাতে হয়তো অনেক প্রাণ বেঁচে যাবে। মৃত্যুর আগে তিনি ডাক্তারদের বলেছিলেন, ‘আমি ভীষণ ভাল জীবন কাটিয়েছি। এই ভেন্টিলেটার আমার চাই না। আমার থেকে কম বয়সী যারা আসবে তাদের জন্য এই ভেন্টিলেটরে রেখে দাও।’ এই ঘটনার ঠিক দু’দিন পরেই মৃত্যুবরণ করেন ঐ বৃদ্ধা।

সুজান লায়ের্স নামের ওই বৃদ্ধা শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যায় হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। পরবর্তী সময়ে তার ভাইরাসের উপসর্গ মেলায় তাকে ভেন্টিলেটার দেওয়ার ব্যবস্থা করেন ডাক্তাররা। সেই সুবিধাই নিতে চাননি ওই বৃদ্ধা।

প্রসঙ্গত, এই ভাইরাস একেবারে নতুন হওয়ায় এখনো কোনো প্রতিষেধক বা ভ্যাকসিন যেমন বাজারে নেই, ঠিক তেমনই উপযুক্ত চিকিৎসা সরঞ্জাম এর অভাব রয়েছে বিশ্বজুড়ে। কোথাও পর্যাপ্ত মাস্ক ও স্যানিটাইজার নেই, কোথাও আবার হাসপাতালে পর্যাপ্ত চিকিৎসা সরঞ্জাম নেই বা কম। এই প্রেক্ষিতে ভাইরাস আক্রান্ত রোগীদের নিয়ে একদিকে যেমন দুশ্চিন্তা অন্যদিকে সাধারণ মানুষের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। সেই প্রেক্ষিতে বলতে গেলে এই বৃদ্ধার এমন সিদ্ধান্ত যুগান্তকারী। গোটা বিশ্ব শ্রদ্ধা জানাচ্ছেন এই বৃদ্ধাকে এবং কুর্নিশ জানাচ্ছেন বৃদ্ধার সাহসকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here