মহানগর ডেস্ক:  দিল্লিতে লকডাউন হওয়ার পর পজিটিভিটির হার অনেকটা কমে গিয়েছে। করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বেশ খানিকটা কমেছে। পরিস্থিতি সামাল দিতে আরও এক সপ্তাহের লকডাউন ঘোষণা করল দিল্লি সরকার। ১৭ মে সোমবার ভোর পাঁচটা পর্যন্ত দিল্লিতে লকডাউন চলবে বলে কেজরিওয়াল সরকারের তরফে জানানো হয়েছে।

লকডাউন বাড়ানোর প্রসঙ্গে কেজরিওয়াল বলেছেন, আগের লকডাউনের জেরে করোনা সংক্রমণ সামান্য হ্রাস পেয়েছে। তবে এখনও রাজ্যের স্বাস্থ্য পরিষেবার ওপর করোনা রোগীদের চাপ রয়েছে। পরিস্থিতি এখনও ভয়ানক। সেই পরিস্থিতিকে নিয়ন্ত্রণে আনতেই আরও এক সপ্তাহ লকডাউন বাড়ানো হয়েছে।

এপ্রিলের মাঝামাঝি সময়ে দিল্লিতে করোনা পজিটিভিটির হার ৩৫ শতাংশে চলে গিয়েছিল। সেখান থেকে করোনা পরীক্ষার পজিটিভির হার ২৩ শতাংশে নেমেছে। চিকিৎসকরা এই পরিসংখ্যানকেও আশঙ্কার নজরে দেখছে। চিকিৎসকরা জানিয়েছে, এই সংক্রমন এখনও অনেকটা নিয়ন্ত্রণে আনার প্রয়োজন। এই মুহূর্তে লকডাউন তুলে নিলে পরিস্থিতি আরও ভয়ানক হয়ে উঠতে পারে।

এটা দিল্লিতে লকডাউনের চার সপ্তাহ হবে। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে এই লকডাউনে শক্তি বাড়ানো কিছুটা সম্ভব হয়েছে। দিল্লিতে করোনা চিকিৎসায় প্রধান বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছিল অক্সিজেনের অভাব। পাশাপাশি বেডের সংখ্যা। দিল্লি সরকার আশ্বস্ত করে জানিয়েছে, এখন অক্সিজেনের আকাল অনেকটাই কমানো সম্ভব হয়েছে। পাশাপাশি অক্সিজেন সরবরাহ বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে হাসপাতাল গুলোতে বেডও বৃদ্ধি করা হয়েছে বলেও দিল্লি সরকারের তরফে জানানো হয়েছে। দিল্লি সহ একাধিক রাজ্য কেন্দ্রের অসম অক্সিজেন বন্টন নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে। এই বিষয়ে সুপ্রিম কোর্ট টাস্ক ফোর্স গঠন করেছে বলে জানা গিয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here