kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি: কয়লা-কাণ্ডের তদন্তের সূত্র ধরে তৃণমূল যুব সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাড়িতে গিয়েছে সিবিআই। এবার এই ঘটনার জেরে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে প্রতিহিংসার অভিযোগ করলেন বিজেপি কেন্দ্রীয় নেতা অনুপম হাজরা। তিনি বলেছেন, ‘আমাকে হেনস্থা করার জন্য শো-কজের উত্তর দেওয়া সত্ত্বেও বাড়ির দেওয়ালে পুলিশ নোটিশ টাঙিয়ে দিয়ে আসে। শুধু তাই নয়, আমি এখন বীরভূমে থাকি না। কলকাতার যে ঠিকানায় থাকি, সেটি পুলিশ জানে। তা সত্ত্বেও আমার বাড়ির দেওয়ালে নোটিশ দিয়ে আসা হল। নির্ধারিত সময়ে যাতে জবাব না দিতে পারি এবং রাজ্য সরকার যাতে প্রতিহিংসার রাজনীতি করতে পারে, তার জন্য এমন করছে।‘

​উল্লেখ্য, কয়েকদিন আগে জোড়াবাগানে এক নাবালিকাকে নৃশংস নির্যাতন করে হত্যা করা হয়েছিল। ঘটনায় দোষীদের গ্রেফতারের দাবিতে এবং উপযুক্ত পুলিশি তদন্ত চেয়ে ওই নাবালিকার বাবা ও কাকাকে নিয়ে অনুপম রাজ্যপালের সঙ্গে দেখা করেছিলেন। সেই দিন তিনি নিজের ফেসবুক ওয়ালে একটি পোস্ট করেছিলেন। পোস্টে তিনি ওই নাবালিকার নাম লেখেন। পরে অবশ্য এডিট করে নামটি কেটে বাদ দেন। এই ঘটনায় রাজ্য শিশু সুরক্ষা কমিশন কড়া পদক্ষেপ করে অনুপমের বিরুদ্ধে। তাঁকে শো-কজ করা হয় কমিশনের তরফে। অনুপমের দাবি, মেল করে তাঁকে শো-কজের উত্তর দেওয়ার কথা বলা হয়েছিল। তিনি মেইল করে উত্তর দিয়েছেন শো-কজের। তারপরও পুলিশ কেন তাঁর বাড়িতে নোটিশ টাঙিয়ে এল, তা তিনি বুঝতে পারছেন না।

​এই প্রসঙ্গে অনুপম হাজরা বলেন, ‘ভাইপোর বাড়িতে সিবিআই তল্লাশি হয়েছে। সেই ঘটনায় এবার প্রতিহিংসার রাজনীতি করছে রাজ্য সরকার। আমাকে শো-কজ করা হয়েছিল শিশু সুরক্ষা কমিশনের তরফে। আমি যথা সময়ে তার উত্তর দিই। তারপরও পুলিশের তরফে আমার বীরভূমের বাড়িতে গিয়ে নোটিশ টাঙিয়ে দেওয়া হল। সেখানে আমার বৃদ্ধ বাবা-মা থাকেন। পুলিশ জানে আমি সেখানে থাকি না। এই ঘটনা পুলিশ ইচ্ছাকৃত ভাবে করেছে। যাতে আমি যথা সময়ে উত্তর না দিতে পারি এবং আমার বিরুদ্ধে প্রতিহিংসামূলক কোনও পদক্ষেপ করতে পারে, তাই এই কাণ্ড করেছে পুলিশ। তবে এইভাবে প্রশাসনকে কাজে লাগিয়ে যতই হেনস্থা করা হোক না কেন, তার ফল তাদের ভোগ করতেই হবে।‘

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here