national bengali news

Highlights

  • অমিত শাহকে তিনি বললেন, ‘জানোয়ার’
  • ‘যদি নোংরামো আর নিচু মানসিকতার সব সীমা কেউ ছাড়িয়েছে, যে হল অমিত শাহ’
  • বিজেপি-এবিভিপিকে সন্ত্রাসবাদী বলেছিলেন কাশ্যপ

মহানগর ওয়েবডেস্ক: বলিউডের বিজেপি বিরোধী অন্যতম মুখ হলেন পরিচালক অনুরাগ কাশ্যপ। শুরু থেকেই মোদী-শাহ শিবিরের বিরোধিতায় সরব তিনি। এই কারণে একাধিকবার নেটিজেনজের তীব্র কটাক্ষের সম্মুখিনও হতে হয়েছে তাঁকে। মাঝে নেট জগৎ ছেড়ে দিলেও সেখানে আবার ফিরে এসে বিজেপি বিরুদ্ধে সুর চড়িয়েছেন তিনি। আর এখন তো সিএএ বিরুদ্ধ বিক্ষোভ সবচেয়ে বড় ঘটনা এ দেশে। কেন্দ্রীয় নাগরিকত্ব আইন নিয়ে ব্যাপক সমালোচনায় সরব হয়েছে অনুরাগ। বলিউডের একাংশও এই প্রতিবাদে সামিল। কিন্তু বিরোধিতা করতে গিয়ে এবার হয়তো শালিনতার সব সীমা ছাড়ালেন পরিচালক। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহকে একপ্রকার কুরুচিকর আক্রমণ করলেন তিনি। অমিত শাহকে তিনি বললেন, ‘জানোয়ার’!

নিজের সোশ্যাল মিডিয়া থেকে পোস্ট করে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে নজিরবিহীন আক্রমণ করে অনুরাগ লিখলেন, ‘আমাদের গৃহমন্ত্রী কত ভীতু। নিজের পুলিশ, নিজের গুন্ডা, নিজের সেনা থাকা সত্ত্বেও নিজেরই সুরক্ষা বাড়ায়। আর এদিকে তারা শুধু প্রতিবাদ করছে তাদের ওপর আক্রমণ করায়। যদি নোংরামো আর নিচু মানসিকতার সব সীমা কেউ ছাড়িয়েছে, যে হল অমিত শাহ। ইতিহাস এই জানোয়ারটার গায়ে থুতু ছেটাবে’। পরিচালকের এই ট্যুইট মুহূর্তের মধ্যে ভাইরাল হয়ে গিয়েছে। পাশাপাশি বলা যায়, নিন্দার ঝড় বইছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

অধিকাংশের মতে, বিরোধী থাকতেই পারে, তা বলে দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে এইভাবে আক্রমণ করা কখনই বাঞ্চনীয় নয়। নেটিজেনদের একাংশ এই মন্তব্যকে মোটেই ভালভাবে নিচ্ছে না। যদিও এই প্রথমবার এমন ধরনের মন্তব্য করেননি অনুরাগ কাশ্যপ। আগেও মোদী-শাহের সমালোচনা করে তীব্র কটাক্ষ করেছেন তিনি। কিছুদিন আগেই অন্য একটি ট্যুইট করে মোদী-শাহ এবং বিজেপি-এবিভিপিকে সন্ত্রাসবাদী বলেছিলেন কাশ্যপ। এবার সরাসরি তাঁর নিশানায় অমিত শাহ।

‘মোদী সরকার অশিক্ষিতদের জন্য’, ‘মোদী বাবার জন্ম সার্টিফিকেট দেখতে চাই’…এমন সব মন্তব্য করে বহুবার বিতর্কের সৃষ্টি করেছেন অনুরাগ কাশ্যপ। কখনও আবার মোদী-শাহের ছবিকে গুন্ডাদের মতো বানিয়ে তা শেয়ারও করেছেন। এমনকি বলিউডের অন্য গোষ্ঠীর থেকেও আক্রমণ করা হয়েছে তাঁকে, কিন্তু তিনি দমে যাননি। তবে এইবারের আক্রমণের জন্য তাঁকে কী কী শুনতে হয় সেটাই দেখার। কারণ, সাম্প্রতিক সময়ে কোনও রাজনৈতিক দলের নেতৃত্ব থেকেও এমন মন্তব্য আসেনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here