মহানগর ওয়েবডেস্ক: ইন্দো-চিন সীমান্তে আলোচনার মাধ্যমে যখন পরিস্থিতি ক্রমশ স্বাভাবিক হয়ে উঠছিল, সেই সময় হঠাৎ ছন্দপতন। লাদাখের গালোয়ান ভ্যালিতে গতকাল রাতে হঠাৎ করেই রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ল দুই দেশের সেনা। আর এর ফলে প্রাণ হারিয়েছেন ভারতের এক সেনা অফিসার ও দুই জওয়ান।

ভারতীয় সেনাবাহিনী সূত্রে জানানো হয়েছে, ‘একদিকে যখন গোটা পরিস্থিতি শান্ত করার প্রক্রিয়া চলছে, তখন গতকাল রাতে গালোয়ান ভ্যালিতে দুই দেশের সেনা হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়ে। এতে ভারতের এক অফিসার সহ আরও দুই জওয়ান শহিদ হয়েছেন। বর্তমানে দুই দেশের সেনাই এই বিষয় নিয়ে আলোচনায় বসেছে।’

উত্তর সিকিমে মে মাসের শুরুতে ভারত ও চিনের কিছু সেনা প্রবল হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়ে। ৫০০০ মিটার উচ্চতায় নাকু লা সেক্টরে দুই দেশের সেনার মধ্যে উত্তেজনা তৈরি হলে তারা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। কথা কাটাকাটি থেকে হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়ে দুই বাহিনীর প্রায় শ–দেড়েক সৈন্য।

এছাড়া ৫ মে লাদাখের প্যাংগঙ লেকের কাছে সীমান্তে দু’দেশের বাহিনীর সদস্যরা হাতাহাতি ও পরস্পরের দিকে পাথর ছোড়াছুড়িতে জড়িয়ে পড়েছিল। সেখানেও প্রায় দুশো জন সেনা জওয়ান ছিলেন। দুই পক্ষের হাতাহাতির ফলে উভয় দেশেরই বেশ কিছু সৈন্য আহত হন। আসলে ভারত চিনের আপত্তি উড়িয়েই প্যানগঙ লেকের ফিঙ্গার এলাকা ও গালোয়ান ভ্যালিতে দুটি রাস্তা বানাচ্ছে। সেই নিয়েই সমস্যা শুরু হয়।

দুই দেশের মধ্যে ক্রমাগত আলোচনার ফলে পরিস্থিতি অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে আসে। প্যানগং সো এলাকার ফিঙ্গার অঞ্চল বাদে সব জায়গা থেকেই চিনা ফৌজ দুই থেকে তিন কিমি পিছিয়ে যায়। ভারতও সেই সব জায়গা থেকে অতিরিক্ত সেনা ও যানবাহন সরিয়ে নিয়েছে। গত সপ্তাহে হট স্প্রিং, পেট্রোলিং পয়েন্ট ১৪, পেট্রোলিং পয়েন্ট ১৫ অঞ্চলে দুই দেশের সেনা আধিকারিকরা বৈঠক করেন। এছাড়া গতকালই ব্রিগেডিয়ার পর্যায়ের বৈঠক হয় দুই তরফে। যখন পরিস্থিতি ধীরে ধীরে শান্ত হচ্ছিল, তখনই চিনা ফৌজের এই ধৃষ্টতায় পরিস্থিতি ফের যে জটিল হতে চলেছে তা বলা বাহুল্য।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here