news national

মহানগর ওয়েবডেস্ক: দেশে করোনা ভাইরাস রুখতে লক ডাউন ঘোষণা করেছে ভারত সরকার। দ্বিতীয় দফার সেই লক ডাউনও শেষের পথে। এসবের মাঝেই করোনা সংক্রমণ আটকাতে ও মানুষকে সচেতন করতে আরোগ্য সেতু তৈরি করেছে কেন্দ্র। সূত্রের খবর, আগামী দিনে প্রত্যেকটি স্মার্টফোনে এই অ্যাপ বাধ্যতামূলক করার নির্দেশ দিতে চলেছে সরকার।

নিউজ 18-এর রিপোর্ট অনুযায়ী, করোনা পরবর্তী সময়ে ফোনের বেচাকেনা শুরু হলেই এই নির্দেশ দেবে সরকার। ফলে ভবিষ্যতে প্রত্যেক স্মার্টফোনে এই অ্যাপ বিল্ট ইন থাকতে হবে। শুধু তাই নয়, এই ফোনে রেজিস্টার না করলে যাতে নতুন ফোন চালু করা না যায়, সেই রকম নির্দেশিকাও দেওয়া হতে পারে। এর জন্য একটি নোডাল এজেন্সিও নিয়োগ করা হবে।

প্রসঙ্গত, গতকাল এক নির্দেশিকায় কেন্দ্র জানায়, সকল সরকারি কর্মীদের ফোনে আরোগ্য সেতু এপ্লিকেশন ডাউনলোড করতে হবে। আর যেসব কেন্দ্রীয় সরকারের কর্মীরা এখনও কাজ করছেন, তাদের প্রতিদিন কাজে আসার আগে ওই অ্যাপে স্বাস্থ্য যাচাই করতে হবে। সকল অটোনমাস ও পাবলিক সেক্টর কর্মচারীদেরও এই নিয়ম মানতে হবে।

সম্প্রতি দিল্লিতে নীতি আয়োগের অফিসে এক কর্মচারীর করোনা ধরা পড়ে। তারপরেই সংক্রমণের আশঙ্কায় গোটা অফিস দুদিনের জন্য বন্ধ করে দেওয়া হয়। যারা ওই ব্যক্তির সংস্পর্শে এসেছিলেন তাদের কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এই ঘটনার পরেই এই নির্দেশ জারি করে কেন্দ্র।

নির্দেশিকায় বলা হয়েছে কাজে নিয়মিত ভাবে ওই অ্যাপে স্বাস্থ্য যাচাই করতে হবে। সেখানে যদি সেফ বা লো রিস্ক স্ট্যাটাস আসে তবেই ওই কর্মচারী কাজে যোগ দেবেন। যদি স্ট্যাটাস মডারেট বা হাই রিস্ক আসে তবে ওই কর্মচারী কাজে যোগ দেবেন না। বরং ১৪ দিন কোয়ারেন্টিনে থাকবেন।

প্রসঙ্গত, এই অ্যাপে করোনা থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য নানাবিধ টিপস যেমন দেওয়া হয়, তেমনই খুব সহজেই স্বাস্থ্য যাচাই করা যায়। পাশাপাশি এই অ্যাপে ব্লুটুথের মাধ্যমে কোনও ব্যক্তির মুভমেন্ট বা আক্রান্ত কারও কাছে যাচ্ছেন কিনা, সে বিষয়েও সতর্ক করে। কিন্তু এটাই আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন অনেকে। বিশেষ করে এই অ্যাপে ব্যক্তিগত তথ্য দেওয়ার ফলে প্রাইভেসি নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। সেক্ষেত্রে কেন্দ্র ব্যবহারকারীদের প্রাইভেসি নিয়ে নিশ্চিন্ত থাকার আশ্বাস দিয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here