মহানগর ওয়েবডেস্ক: এখানে ‘বাপ কা বেটা’ কথাটা বললে কথাটা ভুল বলা হবে। এটা হওয়া উচিত ‘বেটা কা বাপ’। ছেলে দামি গাড়ি ছুটিয়ে রাস্তায় মানুষ মারে, আর বাপ পানশালায় পকেট ভর্তি নোট নিয়ে মজা করে জুয়া খেলে। বাপরোয়া গাড়ি চালিয়ে মানুষ খুনের অভিযোগে তাঁর দুই ছেলেই জেলবন্দী। এবার তাদের যোগ্য সঙ্গ দিয়ে জেলে গেলেন বাবাও। শনিবার গভীর রাতে পার্ক সার্কাসের একটি পানশালায় জুয়ার আসরে অভিযান চালাতে গিয়ে পুলিশের জালে আটকে গেলেন আরসালানের মালিক আখতার পারভেজ।

পুজোর ঠিক আগে পার্ক সার্কাস ও পার্কস্ট্রিটের বিভিন্ন পানশালায় জাঁকিয়ে বসে জুয়ার আসর। জুয়ার সেই ঠেক ভাঙতে মাঝে মধ্যেই অভিযান চালায় পুলিশ। গ্রেফতার করা হয় অভিযুক্তদের। শনিবার গভীর রাতে পার্ক সার্কাসের তেমনই এক পানশালায় জুয়ার আসরের খবর পেয়ে অভিযান চালায় শেক্সপিয়র সরণি ও বেনিয়াপুকুর থানার পুলিশ। সেই অভিযানের জেরে আটক করা হয় ১০ জনকে। উদ্ধার হয় বিপুল পরিমাণ টাকাও। এরপর অভিযুক্তদের থানায় আনতেই চমক লাগে পুলিশের। দেখা যায়, জুয়াকাণ্ডে ওই ১০ জনের মধ্যে একজন আরসালানের মালিক আখতার পারভেজ। কয়দিন আগেই যার দুই পুত্র গ্রেফতার হয়েছে বেপরোয়া গাড়ি চালিয়ে মানুষ খুনের অভিযোগে।

উল্লেখ্য, গত ১৭ সেপ্টেম্বর শেক্সপিয়র সরণী ও পার্ক স্ট্রিটের সংযোগস্থলে একটি মার্সিডিজ বেঞ্জকে ধাক্কা মারে প্রবল গতিতে আসা একটি জাগুয়ার। ভয়াবহ এই দুর্ঘটনার জেরে রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে থাকা দুই বাংলাদেশী নাগরিকের প্রাণ যায়। ঘটনার জেরে আরসালান পারভেজকে গ্রেফতার করে পুলিশ। পরে জানা যায়, এই ঘটনার মূল কাণ্ডারি আখতারের বড় ছেলে রাঘিব। দুজনের বিরুদ্ধেই মামলা চলছে এরই মাঝে এবার জেল বন্দী হলেন আরসালান কর্তা। সোমবার আদালতে তোলা হবে তাঁকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here