kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি: টেলিভিশনের দুটি টক শো-তে টলিউডের দুই অভিনেত্রী দুটি মন্তব্য করেছিলেন। তাদের সেই মন্তব্য নিয়ে কম জলঘোলা হয়নি। বিজেপি শিবির থেকে লাগাতার ওই দুই অভিনেত্রীকে আক্রমণ করা হয়েছে। তার প্রতিবাদে সরব হয়েছেন টালিগঞ্জের শিল্পীমহলের গরিষ্ঠাংশ। এবার তাঁরা পথে নেমে প্রতিবাদ জানালেন বিজেপির বিরুদ্ধে। উল্লেখ্য, কয়েকদিন আগে একটি টেলিভিশন টক শো-তে অভিনেত্রী সায়নী ঘোষ বলেছিলেন, ‘এখন জয় শ্রীরাম স্লোগানটা অনেকটা যুদ্ধধ্বনির মতো করে দেওয়া হচ্ছে। যা একেবারেই কাঙ্ক্ষিত নয়।

অন্যদিকে, অভিনেত্রী দেবলীনা দত্ত বলেছিলেন, তিনি মাটন রান্নার পাশাপাশি বিফও রান্না করতে পারেন। এই দুই অভিনেত্রীর এমন মন্তব্যের পর দ্রুত আসরে নেমে পড়ে বিজেপি। হিন্দু ধর্মের অবমাননা করা হয়েছে অভিযোগ তুলে সোশ্যাল মাধ্যমে তাদের তুলোধনা শুরু করা হয়। শুধু তাই নয়, ধর্ষণের হুমকিও দেওয়া হয়। আজ সোমবার হুগলির পুড়শুড়ার জনসভায় এই প্রসঙ্গটি তোলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেখানে তিনি বলেন, টালিগঞ্জের দুই অভিনেত্রীকে ধর্ষণের হুমকি দেওয়া হচ্ছে এটা যে একেবারে বরদাস্ত করা হবে না, তা তিনি ঘোষণা করেন ওই জনসভায়।

​কয়েকদিন আগে শ্রীরামপুরের একটি জনসভায় বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারী রাজ্যের মন্ত্রী ইন্দ্রনীল সেন সম্পর্কে শিল্পীদের কাছ থেকে কাটমানি নেওয়ার অভিযোগ তোলেন। এই ঘটনার দারুণ ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে শিল্পীমহলে। বহু শিল্পী জানান, সরকারি অনুষ্ঠানে গান গাওয়ার জন্য কোনও দিন তাদের কাটমানি দিতে হয়নি। প্রায় প্রত্যেকেই শুভেন্দুর এই বক্তব্যের নিন্দা করেন।

​সাম্প্রতিককালে এমন সব ঘটনা নিয়ে ক্ষোভ ছড়ায় টালিগঞ্জের শিল্পীমহলে। সেই ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ হিসেবে আজ ধর্মতলায় একটি সভার আয়োজন করা হয়। ওই সভায় টালিগঞ্জের অভিনেতা-অভিনেত্রীদের পাশাপাশি ছিলেন বিভিন্ন জগতের বিশিষ্ট লোকজন। এই অরাজনৈতিক সভায় হাজির হয়ে প্রত্যেককেই বিজেপির ‘ফ্যাসিস্ট’ নীতির বিরুদ্ধে সরব হন।

​এদিনের এই সভায় অভিনেত্রী দেবলীনা দত্ত বলেন, ‘ক্ষমতায় আসার আগেই গণধর্ষণের হুমকি দেওয়া হচ্ছে। ক্ষমতায় এসে এরা সরাসরি ধর্ষণ করবে। এভাবে আমাকে ভয় দেখানো যাবে না। কেউ যদি অপরাধ করে তা হলে তার জেল বা ফাঁসিও হতে পারে। অপরাধের শাস্তি কি ধর্ষণ হতে পারে কখনও?’

​অভিনেতা কৌশিক সেন বরাবরই বিজেপি’র এই মনোভাবের কঠোর বিরোধী। এদিনের সভায় তিনি আবার তার সেই একই অবস্থানে থেকে বক্তব্য পেশ করেন। তিনি বলেন, ‘বিজেপি আজ যেভাবে যে সংস্কৃতির আমদানি করতে চাইছে বাংলায় তা ভয়ঙ্কর। বিশেষ ভাবে নিশানা করা হচ্ছে মহিলাদের। এই প্রবণতা আটকাতে না পারলে তা বাংলার জন্য চরম বিপদের হবে।‘

​অভিনেত্রী সায়নী ঘোষ বলেন, ‘যে ধরনের ফ্যাসিবাদ বাংলার মানুষের জীবনে ছড়িয়ে পড়ছে, তাতে আমি বিশ্বাস করি বাংলার মানুষ এর কড়ায়-গণ্ডায় জবাব দেবে।‘ এদিনের এই অরাজনৈতিক প্রতিবাদ সভায় হাজির ছিলেন টালিগঞ্জের অভিনেতা-অভিনেত্রীদের পাশাপাশি কবি-সাহিত্যিক ছাড়াও বেশকিছু বিদ্বজ্জন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here