মহানগর ওয়েবডেস্ক:রাজনৈতিক জগতে শূন্যতা সৃষ্টি করে চলে গেলেন প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি৷ দুপুর আড়াইটে নাগাদ নিগামবোধ ঘাটে নিয়ে যাওয়া হবে জেটলির দেহ৷ সেখানেই বিকেল চারটে নাগাদ পূর্ণ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় শেষকৃত্য সম্পন্ন হবে তাঁর৷

শনিবার বিকেলেই এইমস থেকে জেটলির দেহ তাঁর কৈলাশ কলোনির বাসভবনে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তাঁকে শ্রদ্ধা জানান, বিজেপির প্রথম সারির নেতা মন্ত্রীরা৷ শ্রদ্ধা জানান প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং,কংগ্রেস সভাপতি সনিয়া গান্ধী, কংগ্রেস সাংসদ রাহুল গান্ধী সহ বিশিষ্ট ব্যক্তিরা৷ আজ সকাল ১০টা নাগাদ তাঁর দেহ নিয়ে যাওয়া হবে বিজেপির সদর দফতরে। তাঁর দেহ দুপুর ২টো পর্যন্ত শায়িত থাকবে সেখানে। বিজেপি নেতা-কর্মী-সহ দেশের প্রথম সারির নেতামন্ত্রীরা তাঁকে শেষ শ্রদ্ধা জানাবেন। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বর্তমানে রয়েছেন বাহরাইনে। জেটলির প্রয়ানে খবর পেয়েই জেটলির স্ত্রী সঙ্গীতা এবং ছেলে রোহনের সঙ্গে ফোনে কথা বলেন তিনি। সোমবার ট্রাম্পের সঙ্গে মোদীর বৈঠক।শীর্ষ আধিকারিকদের তিনি বলেছিলেন, যদি কোনও ভাবে কিছু ক্ষণের জন্য দিল্লি ফেরা যায়। সঙ্গীতাদেবী অবশ্য প্রধান মোদীকে বলেন, ‘‘ তড়িঘড়ি আসার দরকার নেই।’’পরে মোদী বলেন, ‘‘রাজনৈতিক জীবনের শুরু থেকে যে বন্ধুর সঙ্গে স্বপ্ন দেখেছি, স্বপ্ন সার্থক করেছি, সেই অরুণ আমাদের ছেড়ে চলে গিয়েছেন। এক দিকে কর্তব্যের বন্ধন, অন্য দিকে বন্ধু বিয়োগের যন্ত্রণায় দীর্ণ হচ্ছি। অগস্টেই সুষমাজি চলে গিয়েছেন। আজ বন্ধু অরুণও চলে গেল।’’

একদিকে দুঁদে আইনজীবী, অন্যদিকে রাজনৈতিক নেতা। একদিকে সিরিয়াস রাজনীতির দৈনন্দিন চর্চা, অন্যদিকে প্রবল রসবোধের অধিকারী ছিলেন অরুণ জেটলি। নানা গুণের মিশ্রণে অরুণ জেটলি দিল্লির রাজনৈতিক মহলে ছিলেন জনপ্রিয়৷ তাঁর প্রয়াণে শোকের ছায়া ভারতের রাজনৈতিক জগতে৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here