ডেস্ক: এবার অসম ও অরুণাচল প্রদেশে জারি বন্যার সতর্কবার্তা। মূলত চিনের একটি নদী থেকেই নিম্নচাপ ঘনীভূত হচ্ছে। চিনের তরফে জানা হয়েছে, তিব্বতের ইয়ারলাং সাংপো নদীর একাংশ ধসের কারণে আটকে রাখা হয়েছে। সেখানে কৃত্রিম লেক তৈরি করা হয়েছে। এই লেক ইতিমধ্যেই জলে পরিপূর্ণ, কিন্তু ঝড়ের কারণে এই লেকের জল ছাপিয়ে গেলেই নিম্ন অববাহিকায় প্রবল বন্যার আশঙ্কা রয়েছে। তিব্বতের ইয়ারলাং সাংপো নদীর শাখা অসমে ব্রহ্মপুত্র নামে পরিচিত। অরুণাচল প্রদেশের পূর্ব সিয়াং জেলা প্রশাসন সিয়াং নদী ও অবহিকার কাছাকাছি না যাওয়ার সতর্কতা জারি করেছে। ইতিমধ্যেই ধসের কারণে সিয়াং নদীতে জলের প্রবাহ কমে গিয়েছে। এরপর লেক ভেঙে গেলেই নিম্ন অববাহিকায় প্রবল বন্যার আশঙ্কা সৃষ্টি হয়েছে। কেন্দ্রীয় জল কমিশনের তরফে ইতিমধ্যেই বিষয়টি দিল্লিতে জানানো হয়েছে।

আইনসভার কংগ্রেস সদস্য নিনং এরিং বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের কাছে বিজ্ঞপ্তি জারি করে চিনের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে কথা বলার দাবি তুলেছে। চিনা সংবাদমাধ্যম সূত্রে খবর তিব্বতের ইয়ারলাং সাংপো নদীতে কৃত্রিম লেক তৈরির জেরে প্রায় ছ-হাজার লোককে পূর্ব সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসাবে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। অসম সরকারের তরফ থেকে আপার অসমের ডিব্রুগড়, ধেমাজি, লাখিমপুর, তিনসুকিয়ায় সতর্কতা জারি করা হয়েছে। কেন্দ্রের তরফে কলকাতা ও ভুবনেশ্বর থেকে এনডিআরএফ টিমকে পাঠানো হয়েছে এলাকায়। অরুণাচল প্রদেশ সরকার সূত্রে খবর, বেজিং-এর তরফ থেকে নতুন দিল্লিকে ইয়ারলাং সাংপো নদীতে কৃত্রিম লেক তৈরির কথা জানানো হয়েছে। তিব্বত থেকে পাওয়া খবর অনুযায়ী, তৈরি হওয়া কৃত্রিম হ্রদের দৈঘ্য ৩.৫ কিমি এবং প্রস্থে ২.৫ কিমি। তিব্বতের নেক্সিয়া জলবিদ্যুৎ প্রকল্প থেকে প্রায় ১৭ কিমি নিচে এই কৃত্রিম হ্রদ তৈরি হয়েছে। সিয়াং নদীতে প্রবল বৃষ্টির কারণে এর আগেও বন্যা পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল। গত অগাস্টে অসমের ধেমাজি জেলার বহু মানুষকে হেলিকপ্টারে উদ্ধার করা হয়েছিল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here