মহানগর ডেস্ক: আর মাত্র পাঁচদিন পরেই প্রথম দফার বিধানসভা নির্বাচন, তার আগেই শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি সেরে ফেলতে প্রচারে নেমেছে বঙ্গের যুযুধান দুই রাজনৈতিক দল। গতকাল বাঁকুড়ায় জনসভা করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, তাঁকে টক্কর দিতে এদিন বাঁকুড়াতেই মোট তিনটি পাল্টা নির্বাচনী জনসভা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। এদিন বাঁকুড়ার কোতলপুর জনসভা থেকে তৃণমূল নেত্রী ফের মনে করিয়ে দিলেন বিগত ৩৪ বছর ধরে সিপিএমের সন্ত্রাসের অধ্যায়। তিনি বলেন, ‘বিক্রমপুর গ্রামের সেই অত্যাচার কোনওদিন ভুলবোনা। গোপীনাথপুরে বন্দুক নিয়ে সিপিএমের সন্ত্রাস কোনওদিন ভুলবনা। চমকাইতলায় অজিত পাঁজাকে আটকে দিয়ে বসে গুলি করার ঘটনা আমি আজও ভুলিনি। সিপিএম বাস ভাঙচুর করছিল, গুলি চালাচ্ছিল, আমি সেইসময় গিয়ে মানুষদের উদ্ধার করেছিলাম।’

গত বিধানসভা নির্বাচনে বাঁকুড়ায় তৃণমূল ভালো ফল করলেও ঊনিশের লোকসভা নির্বাচনে বাঁকুড়া চলে যায় বিজেপির দখলে, যা নিয়ে এদিন উৎকণ্ঠা প্রকাশ করেন তৃণমূল নেত্রী। তাঁর কথায়, ‘মা বোনেরা আমার, এটা দিল্লির নির্বাচন নয়, এটা বাংলার নির্বাচন। যারা আগেরবার বিজেপিকে ভোট দিয়েছিলেন তাঁদের বলবো, বিজেপি বলেছিল ১৫ লক্ষ টাকা ব্যাংকে ঢুকিয়ে দেবে, দিয়েছে ? তাহলে ওদের ভোট দেবেন কেন ? ওরা ভোটে জেতার জন্য মিথ্যে কথা বলে।’

গতকালই বিজেপি তাদের নির্বাচনী ইস্তাহার প্রকাশ করেছে। বিজেপির ইস্তাহারকে কটাক্ষ করে মমতা বলেন, ‘ওরা ভোটের আগে মিথ্যে কথা বলে। বলে চাল দেব, ডাল দেব, চাকরি দেব, সব দেব। কিন্তু ভোট মিটে গেলেই পালিয়ে যায়, আর মিথ্যের ডুগডুগি বাজায়। তাই বিজেপিকে আমরা কেউ চাইনা।’ এরপরেই মমতা তাঁর তৃণমূল সরকারের সাফল্যের কথা তুলে ধরে বলেন, ‘এই জঙ্গলমহলে আগে মাওবাদী, সিপিএমের অত্যাচারে প্রতিদিন রক্ত ঝড়ত, প্রতিদিন খুন হত, প্রতি বছরে ৩০০ মানুষের মৃত্যু হত।’ এরপরেই সভার মানুষের উদ্দেশে প্রশ্ন ছুঁড়ে দিয়ে মমতা জিজ্ঞেস করেন, ‘আজ জঙ্গলমহলে কোনও অশান্তি আছে ? খুন হয় ?’

এরপরেই প্রচারের জন্য ফের উন্নয়নকে হাতিয়ার করেন মমতা। তিনি বলেন, ‘আমাদের সরকার সকলের বাড়িতে বাড়িতে রেশন পৌঁছে দেবে। বাড়ির মা-বোনদের প্রতি মাসে ৫০০টাকা হাত খরচ দেওয়া হবে। তফসিলি, আদিবাসী মা-বোনদের ষাট বছর হলেই ১০০০ টাকা করে বার্ধক্য ভাতা দেওয়া হবে। আপনাদের সমস্যার সমাধান করতে বছরে চারমাস সরকার দুয়ারে দুয়ারে যাবে। পাশাপাশি পাঁচ লক্ষ ছেলে মেয়ের চাকরির ব্যবস্থা করা হবে।’ মমতা প্রতিশ্রুতি দেন, ‘ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পে পাঁচ লক্ষ কোটি টাকা বিনিয়োগ করে লক্ষ লক্ষ ছেলে-মেয়ের চাকরির ব্যবস্থা করবে সরকার।’

এরপরেই কংগ্রেস-বিজেপি-সিপিএমকে একই বন্ধনীতে রেখে আক্রমণ শানান মমতা। তিনি বলেন, ‘মনে রাখবেন, সিপিএম-কংগ্রেস কিন্তু এবার বিজেপির সঙ্গে ডিল করেছে। ওদের ডিলটাকে খিল মেরে দিন।’ জনতার উদ্দেশে বলেন, ‘বাইরে থেকে বর্গী আসছে। এই বর্গী, বহিরাগত গুন্ডাদের বিরুদ্ধে মা-বোনেরা জোট বাঁধুন। আগে সিপিএম আমাকে মেরেছে, এখন বিজেপি আমাকে মারছে, ওরা জানেনা যে আমি ভাঙি তবু মচকাই না।’ তিনি বলেন, ‘যতক্ষন চলবে আমার স্বাস, আমি বিজেপি-সিপিএম-কংগ্রেসকে এক ইঞ্চিও জমি ছাড়বোনা।’ ভাঙা পায়ের প্রসঙ্গ তুলে তিনি ফের বলেন, ‘এই ভাঙা পা দিয়েই এমন শট মারবো, বিজেপিকে মাঠের বাইরে পাঠিয়ে দেব।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here