news national

মহানগর ওয়েবডেস্ক: বিজেপিকে হারিয়ে সেই সময় হাসিমুখে উপ মুখ্যমন্ত্রীর পদ স্বীকার করে নিলেও, হাইকমান্ডের এহেন সিদ্ধান্ত খুব একটা ভালো চোখে নেননি রাজস্থানের যুবনেতা শচিন পাইলট। রাজস্থানে কংগ্রেস সরকার পুনঃপ্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর নবীন ও প্রবীণ দীর্ঘদিন হাতে হাত রেখে চললেও এবার প্রকাশ্যে চলে এল কোন্দল। আর এর ফলে গোটা পরিস্থিতি মোটেও স্বাভাবিক ভাবে নিচ্ছেন না বিশেষজ্ঞরা। সাম্প্রতিক মধ্যপ্রদেশের কালোমেঘ ঘনাতে শুরু করেছে রাজস্থানের আকাশে। বরিষ্ঠ নেতাদের অনুমান অনেকটা জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া ছকে এবার সরকার পড়তে পারে রাজস্থানে।

জানা গিয়েছে কংগ্রেস সভাপতি পদকে নিয়েই অশোক গেহলট এবং শচীন পাইলট এর মধ্যে রীতিমতো দ্বন্দ্ব শুরু হয়েছে। পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে উপমুখ্যমন্ত্রী শচীন পাইলট কে সঙ্গে নিয়ে দশ বারোজন কংগ্রেস ও নির্দল বিধায়ক দিল্লি পৌঁছে যান। সোনিয়া গান্ধীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন তারা। এদিকে মধ্যরাতে ক্যাবিনেট মন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠকে বসেন অশোক গেহলট। এরই মাঝে সম্প্রতি অশোক গেহলটের তরফে অভিযোগ তোলা হয় রাজস্থানের সরকার ফেলার চেষ্টা করছে বিজেপি। কোটি কোটি টাকার টোপ ফেলা হচ্ছে বিধায়কদের সামনে। তার কথায়, ‘করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে আমি সবাইকে সঙ্গে নিয়ে লড়ার চেষ্টা করেছি। কিন্তু বিজেপি নেতারা মানবিকতার সব সীমা লংঘন করেছে। একদিকে আমি জীবন-জীবিকা বাঁচানোর চেষ্টা করছি তো অন্যদিকে কেউ সরকার ফেলে দেওয়ার চেষ্টা চালাচ্ছে।’ তবে সরকার থাকবে এবং পুরো ৫ বছর চলবে বলেও জানিয়ে দেন তিনি।

তবে রাজস্থানের দুই শীর্ষ নেতার কোন দল যেভাবে প্রকাশ্যে চলে এসেছে তা মোটেও ভাল চোখে দেখছে না বিশেষজ্ঞরা। রাজনৈতিক মহলের দাবি, বর্তমানে সেখানে যা অবস্থা তাতে যে কোনও মুহূর্তে যা কিছু ঘটে যেতে পারে। রাজস্থানের দুই শীর্ষ নেতা একে অপরকে অবিশ্বাস করতে শুরু করেছে। কংগ্রেস সূত্রে জানা যাচ্ছে, ২০১৮ সালে রাজস্থানের সরকার গঠনের সময় থেকেই সমস্যার সূত্রপাত এই দুই দাপুটে নেতার মধ্যে। পাইলটের বিশ্বাস ছিল তাকে দেওয়া হবে মুখ্যমন্ত্রীর পদ। যদিও আশা ভঙ্গ হয় তার। এর পর লোকসভা নির্বাচনে মনোনয়ন নিয়ে একদফা সমস্যা বাদে। পাশাপাশি নানা ইস্যুতে মাঝেমধ্যেই এই দুই শীর্ষ নেতার কোন্দল প্রকাশ্যে এসেছে। তবে এবার বিজেপি যেভাবে উঠে পড়ে লেগেছে, তাতে রাজস্থানের ঘর ভাঙার ইঙ্গিত পাচ্ছে বিশেষজ্ঞ মহল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here