mamata habra

নিজস্ব প্রতিনিধি:  হাবড়ার মমতা জনসভায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বেশিরভাগটাই ছিল শরণার্থী ভিত্তিক। এদিনের জনসভায় তিনি বলেন, মেশিন খারাপ হলে, দেরি হলে অপেক্ষা করুন। কিন্তু ভোটটা দেবেন। তবেই আপনার ভোটার লিস্টে নাম থাকবে। কেন্দ্রীয় সরকার যাতে এনআরসি করতে না পারে।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘আপনারা হাবড়ার মানুষ জানেন অনেক কাজ তৃণমূল সরকার করেছে। বনগাঁ-বসিরহাটে মাল্টি স্পেশালিটি হাসপাতাল হয়েছে। হাবড়া স্টেট জেনারেল হাসপাতালকে অনেক উন্নত করা হয়েছে। শিল্পেপ ক্ষেত্রে হাবড়া-অশোকনগর নতুন দিশা দেখাচ্ছে। হাবড়ার জয়গাছিতে টেক্সটাইল হাব তৈরি হচ্ছে।’

হাবড়াতেও তিনি এনসিআর প্রসঙ্গ তুলে আনেন। রাজ্যের সমস্ত শরণার্থীকে স্বীকৃতি দিচ্ছে রাজ্যসরকার বলেও তিনি উল্লেখ করেন। মতুয়াদের আবেগ ধরতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘বড়মার ৩০ বছর ধরে চিকিৎসা আমি করিয়েছি। যখন বড়মা অসুস্থ ছিলেন, কেউ দেখেনি, আমরা দেখেছিলাম। আমরা পিকে ঠাকুরের নামে কলেজ করেছি।’

 তিনি বলেন, তৃণমূল সরকার গঠন করলে কৃষকরা ১০ হাজার টাকা পাবেন বার্ষিক। ১০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত স্টুডেন্ট লোন নিতে পারবেন পড়ুয়ারা। যার জেরে কোনও পড়ুয়ার উচ্চশিক্ষার পথে আর্থিক অবস্থা বাধা হয়ে দাঁড়াবে না। দেশে করোনায় ভয়াবহ পরিস্থিতির জন্য হাবড়ার জনসভা থেকে মোদিকে আক্রমণ করেন মমতা। তিনি বলেন, গত ছয় মাস সময় পেয়েছিল কেন্দ্রীয় সরকার। সেই সময়ের মধ্যে সকলকে ভ্যাকসিন দিয়ে দিলে দেশে করোনা পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ আকার ধারণ করত না।  

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here