মহানগর ওয়েবডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর লাদাখ সফর নিয়ে এবার রাজনৈতিক পারা চড়তে শুরু করেছে। প্রধানমন্ত্রী যেখানে আহত সেনা জওয়ানদের সঙ্গে দেখা করেন তা নাকি আসলে হাসপাতাল ওয়ার্ডই নয়। এমনই দাবি করছেন বিরোধীরা। মোদীর জন্য উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবে জওয়ানদের অন্য ঘরে নিয়ে গিয়ে তাদের বসিয়ে রেখে একপ্রকার ‘পোজ’ দিতে বলা হয়েছিল বলেও দাবি করা হচ্ছে বিরোধীদের তরফে। এহেন নানা ধরনের কটুক্তি ও অভিযোগকে এদিন ‘দুর্ভাগ্যপূর্ণ’ আখ্যা দেওয়া হয়েছে সেনার তরফে। একই সঙ্গে জানানো হয়েছে, যেই ঘরে জওয়ানরা ছিলেন সেটাকে বহু আগেই কোভিড প্রোটোকল অনুযায়ী ওয়ার্ডে পরিণত করা হয়েছে। যা আসলে একটি অডিও-ভিডিও ট্রেনিং রুম।

এদিন সেনাবাহিনীর তরফে বিবৃতি দিয়ে জানানো হয়, ‘এটা দুর্ভাগ্যজনক যেভাবে আমাদের সাহসী সশস্ত্র বাহিনীকে কীভাবে আচরণ করা হয় তা নিয়ে নানা ধরনের মন্তব্য করা হচ্ছে। সশস্ত্র বাহিনী তাদের কর্মীদের সর্বোত্তম সম্ভাব্য চিকিত্সা দেয়।’ প্রসঙ্গত, শুক্রবার গালোয়ানের সংঘর্ষে আহত সেনাবাহিনীর সঙ্গে গিয়ে দেখা করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। লেহর সেনা হাসপাতালে গিয়ে জওয়ানদের মনোবল বাড়ানোর কাজ করেন তিনি। কিন্তু বিরোধী শিবির ও সমালোচকদের চোখে বেশ কিছু খটকা লাগে জওয়ানদের দেখে।

প্রথমত দেখা যায় মোদী যেই হলে জওয়ানদের সঙ্গে কথা বলছেন সেটার সিলিংয়ে প্রোজেক্টর লাগানো। যা থেকে স্পষ্ট হয়ে যায় সেটা হাসপাতালের ওয়ার্ড নয়। দ্বিতীয় কোনও আহত জওয়ানকেই শোয়ার অনুমতি দেওয়া হয়নি, প্রত্যেকে বসে ছিলেন। তৃতীয়ত, কোনও জওয়ানের পাশে ন্যূনতম জলের বোতল বা ফল কিছুই ছিল না। চিকিৎসার কোনও সামগ্রীই দেখা যায়নি। ফলে প্রশ্ন উঠতে শুরু করে, মোদী নিজের প্রচারের জন্য সীমান্তে আঘাত পাওয়া জওয়ানদের কেন এভাবে ব্যবহার করছেন, কেনই বা কষ্ট দিচ্ছেন? এহেন একাধিক প্রশ্নের মুখে অবশেষে সাফাই দিল সেনা। তবে বহু প্রশ্নের উত্তর অধরাই রয়ে গেল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here