মহানগর ওয়েবডেস্ক: বৃহস্পতিবার বিশ্বকাপের মঞ্চে এক দুরন্ত ম্যাচের সাক্ষী থাকল গোটা ক্রিকেট বিশ্ব। অতি বড় ক্রিকেট বোদ্ধাও বোধহয় ভাবতে পারেননি, ম্যাচটা এতটা উত্তেজক হতে পারে। অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে শেষমেশ ৪৮ রানে হারলেও, পদ্মাপাড়ের এগারো বাঙালির অদম্য লড়াইকে কুর্নিশ জানিয়েছে গোটা বিশ্ব।

উত্তেজক এই ম্যাচে বাংলাদেশ হারলেও, গড়া হল নয়া এক নজির। দুই দল মিলিয়ে মোট ১০০ ওভারের খেলায় রান তুলল ৭১৪। বিশ্বকাপের মঞ্চে কোনও একটি ম্যাচে এতরান কোনওদিনও ওঠেনি এর আগে। এর আগে ২০১৫ সালে বিশ্বকাপের ম্যাচে অস্ট্রেলিয়া-শ্রীলঙ্কা ম্যাচে মোট ৬৮৮ রান উঠেছিল। সেই রেকর্ডই গতকাল ভেঙে যায়।

ম্যাচে টসে জিতে প্রথমে ব্যাট করে অস্ট্রেলিয়া। ম্যাচে দুরন্ত খেলেন ডেভিড ওয়ার্নার। ১৪৭ বলে ১৬৬ রানের অনবদ্য ইনিংসস খেলেন তিনি। ওয়ানডেতে দ্রুততম ১৬টি সেঞ্চুরি করে কোহলির রেকর্ড স্পর্শ করেন ওয়ার্নার। ভালো খেলেন অ্যারন ফিঞ্চ (৫৩), উসমান খোয়াজা (৮৯)। বাংলাদেশী বোলারদের ঠেঙিয়ে ৫০ ওভারে ৩৮১ রান করে অস্ট্রেলিয়া।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা নড়বড়ে হলেও স্টার্ক, কামিন্স, কুল্টার-নাইলদের আগুনে বোলিংয়ের সামনে দুরন্ত লড়াই করেন বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা। বিশেষভাবে উল্লেখ করতে হয় উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহমানের কথা। ৯৭ বলে ১০২ রানের ইনিংস খেলেন তিনি। তবে তাঁর দুর্ভাগ্য তামিম ইকবাল (৬২) ও মহমদ্দুল্লাহ (৬৯) ছাড়া আর কেউ তাঁর পাশে দাঁড়াতে পারেননি। শেষমেশ ওয়ানডেতে নিজেদের সর্বোচ্চ রান ৩৩৩/৮ করেই সন্তুষ্ট থাকতে হয় বাংলাদেশকে। সেঞ্চুরি করেও স্ট্র্যাজিক নায়ক হয়েই রয়ে যান মুশফিকুর।

 

 

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here