kolkata news

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: খাতায় কলমে আজও বিজেপিতে তাঁর নাম থাকলেও, কলকাতার প্রাক্তন মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়ের মন কোথায় পড়ে তা নিয়ে গুঞ্জন কম নেই। বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর আজও কোনও কর্মসূচিতে দেখা যায়নি শোভনকে। উল্টে মমতার থেকে নিয়েছেন ভাইফোঁটা। এদিকে পুরোভোট ঘাড়ের কাছে নিঃশ্বাস ফেলা শুরু করতেই তৎপরতা বেড়েছে রাজনৈতিক দলগুলির মধ্যে। শহরে বিজেপির লোগো দিয়ে ব্যানার পড়ছে শোভনকে ফেরাতে। আহ্বান করা হচ্ছে সক্রিয় রাজনীতিতে ফিরুন শোভন চট্টোপাধ্যায়। এই আবহের মাঝেই বৃহস্পতিবার নবান্নে পৌঁছলেন ‘শোভন বান্ধবী’ বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়। নবান্নে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে বৈঠকে বসলেন তিনি। এদিকে পুরভোটের মুখে, বৈশাখীর এই পদক্ষেপে ইতিমধ্যেই নয়া জল্পনা শুরু হল রাজনৈতিক মহলে।

ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে সমস্যার জেরে দলীয় নেত্রীর সঙ্গে অভিমান করে তৃণমূল কংগ্রেস ছেড়েছিলেন শোভন চট্টোপাধ্যায়। এরপর ২০১৯ সালে দিল্লিতে গিয়ে বিজেপিতে যোগদান করেছিলেন তিনি। বরাবরের মতো সঙ্গে ছিলেন বান্ধবী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়। ঘাসফুল ছেড়ে পদ্মফুল ধরলেও, প্রথম থেকেই গেরুয়া শিবিরে মানিয়ে নিতে পারেননি শোভন। প্রথম থেকেই বান্ধবী বৈশাখীকে নিয়ে দলের মধ্যে অস্বস্তিতে পড়েছিলেন তিনি। পরোক্ষভাবে হলেও অসন্তোষ দেখা দিয়েছিল খোদ রাজ্য বিজেপির সভাপতির সঙ্গে। তারপর থেকেই দলের কোনও অনুষ্ঠানে আর দেখা যায়নি শোভন চট্টোপাধ্যায়কে। এমনকি কলকাতায় অমিত সাহর সভাতে উপস্থিত ছিলেন শোভন চট্টোপাধ্যায়।

বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পরেও, দীর্ঘ সময়ে দলীয়কার্য থেকে আড়ালে থাকা প্রসঙ্গে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছিল শোভন চট্টোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে। এদিকে পুরভোট এগিয়ে আসতেই শুরু হয়েছিল নতুন জল্পনা। শোনা যাচ্ছিল ফের মেয়র পদপ্রার্থী হিসেবে তৃণমূলের হয়ে দাঁড়াতে চলেছেন শোভন চট্টোপাধ্যায়। এদিকে এই জল্পনা চলার মাঝেই পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে দেখা করেছিলেন বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়। যার ফলে আরো তীব্র হয় জল্পনা। এদিকে শোভন চট্টোপাধ্যায় সঙ্গে ফের তৃণমূল যোগের প্রসঙ্গ উঠতেই নড়েচড়ে বসে রাজ্য বিজেপি।

পুরো ভোটের আগেই দুই দলের মধ্যে শুরু হয়ে যায় পোস্টার বিতর্ক। কিছুদিন আগেই দক্ষিণ কলকাতায় পোস্টার পরে শোভন চট্টোপাধ্যায়কে নিয়ে। ওই পোস্টারে শোভন চট্টোপাধ্যায়কে ফের মেয়র নির্বাচন করার জন্য দাবি জানানো হয়েছে। বিজেপির দলীয় প্রতীক দিয়ে টাঙানো হয় এই পোস্টার। তবে এই প্রসঙ্গে একটি বারের জন্য মুখ খুলতে দেখা যায়নি বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্বকে। পাশাপাশি শোনা যাচ্ছিল শোভন হবেন পুরভোটে বিজেপির অন্যতম মুখ। তবে দলের তরফে এত আয়োজন থাকলেও নিজেকে শামুখের খোলে আজও গুটিয়ে রেখেছেন শোভন।

মাঝে বহুবার পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে গিয়েছেন বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়। যদিও সে সাক্ষাৎ পুরোপুরি সৌজন্য সাক্ষাৎ ও কলেজ সম্পর্কিত বলেই দাবি ছিল বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের। এরপর সরাসরি নবান্নে বৈশাখীর মমতা সাক্ষাৎ জল্পনা যে ভাল রকম চড়িয়ে তুলল তা বলার অপেক্ষা রাখে না। তবে ঘনিষ্ঠ মহল সূত্রে জানা যাচ্ছে বিজেপি নয়, শোভন ইচ্ছুক ফের তৃণমূলে যোগ দিতে। এই সাক্ষাৎ তারই একটি পদক্ষেপ বলে দাবি সূত্রের।

এদিকে বৃহস্পতিবার সাংবাদিক বৈঠকে দিলীপ ঘোষের সামনে বিজেপিতে শোভন চট্টোপাধ্যায়ের ভবিষ্যৎ নিয়ে প্রশ্ন উঠতে দিলীপ ঘোষ স্পষ্ট জানিয়ে দেন, তিনি দলের ভবিষ্যৎ নিয়ে বলতে পারবেন। কোনও ব্যক্তির ভবিষ্যৎ বলতে পারব না। তাঁর মন্তব্য থেকে এটুকু অনুমান করেই নেওয়া যায় আপাতত শোভনকে বাতিলের খাতাতে রেখেই পথ হাঁটা শুরু করেছে বিজেপি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here