kolkata bengali news

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাঁকুড়া: বর্তমান রাজ্য সরকারের জন্য মানুষ কেন্দ্রের বিভিন্ন সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। রাজ্য সরকার ‘আয়ুষ্মান যোজনা’ নিয়ে মৌ স্বাক্ষর করেও গায়ের জোরে তা বাস্তবায়িত হতে দেয়নি। এমনকি সেই প্রকল্পের টাকা নিয়েও করা হচ্ছে নয়ছয়। এমনই বিস্ফোরক অভিযোগ করলেন বাঁকুড়ার সাংসদ।

আধার কার্ডের সংশোধন করতে গিয়ে নাকাল হচ্ছেন আম জনতা। বিশেষ করে দূর দূরান্ত থেকে গ্রামের মানুষ শহরের প্রধান ডাক ঘরে রাত জেগে লাইন দিচ্ছেন। মানুষের এই হয়রানি কমাতে জেলার ডাক বিভাগের ৪৭ টি শাখাতেই আধার কার্ডের সংশোধনের কাজ হলে ভাল হয়। আর সেই ব্যবস্থা চালু করতে দিল্লীতে কেন্দ্রীয় যোগাযোগ মন্ত্রক তথা ডাক বিভাগের দ্বারস্থ হবেন বাঁকুড়ার সাংসদ সুভাষ সরকার। সোমবার জেলার মুখ্য ডাকঘর পরিদর্শনে এসে সাংবাদিকদের এই কথা জানান সাংসদ।

জেলা জুড়ে মাত্র ১৬ টি ডাকঘর শাখায় আধার সংশোধনের কাজ হচ্ছে। যা প্রয়োজনের তুলনায় অনেক কম। জেলার ৪৭টি শাখাতেই এই পরিষেবা চালু করা গেলে দূর-দূরান্ত থেকে আশা গ্রামের মানুষেরা অনেক সহজেই ও কম খরচে আধার কার্ডের সংশোধন ও নতুন আধার কার্ড করতে পারবেন। এই বিষয় নিয়েই কেন্দ্রীয় স্তরে যোগাযোগ করবেন বলে জানান সাংসদ সুভাষ সরকার। এই ব্যবস্থা চালু করতে পারলে আধার কার্ড সংশোধনে মানুষের হয়রানি অনেক কমে যাবে বলে মনে করা হচ্ছে।

‘আয়ুষ্মান ভারত যোজনা’ প্রকল্পে রাজ্য সরকার গায়ের জোরে বেশ কিছু জায়গায় বাস্তবায়িত করতে দেয়নি বলে অভিযোগ করে তা নিয়েও সরব হন সাংসদ। তিনি বলেন রাজ্য সরকারের সাথে ‘আয়ুষ্মান ভারত যোজনা’ নিয়ে যে মৌ স্বাক্ষর হয়েছিল তা বাস্তবে রূপ দিতে ১৩৯ কোটি টাকা রাজ্য সরকার নিয়েছে। সেই অর্থকে স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্পে ব্যবহার করে নয় ছয় করা হচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি। রাজ্যের মানুষ কেন্দ্রীয় সরকারের অনেক ভাল পরিষেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে বলেও দাবি করেন তিনি। বাঁকুড়ার মুখ্য ডাকঘর পরিষেবা ঘুরে দেখার পাশাপাশি এদিন তিনি নিজের ছবি লাগানো একটি ‘মাই স্ট্যাম্প’ ও বের করেন তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here