kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি: বিজেপির কেন্দ্রীয় সম্পাদক অনুপম হাজরা সম্পর্কে বেশকিছু বিস্ফোরক অভিযোগ করেছেন পড়শি বাংলাদেশের ঢাকার এক মহিলা। তবে ওই মহিলা এই দেশের কোনও থানায় সেই অভিযোগ দায়ের করেননি। নেট মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে তাঁর অভিযোগের তালিকা। গত কয়েকদিন ধরে সামাজিক মাধ্যমে ওই মহিলার সঙ্গে এই দেশের এক সাংবাদিকের দীর্ঘ প্রায় ২৩ মিনিটের একটি কথোপকথন শোনা যাচ্ছে। সেই কথোপকথনেই বাংলাদেশের ওই মহিলাকে বেশ কিছু অভিযোগ করতে শোনা গিয়েছে বিজেপি নেতা অনুপম হাজরা সম্পর্কে। ঢাকার বাসিন্দা ওই মহিলা নিজেকে সে দেশের শীর্ষ আদালতের আইনজীবী বলে দাবি করেছেন। একই সঙ্গে তাঁর কথায় বোঝা গিয়েছে তিনি বেশ বিত্তশালী।

​ওই মহিলার কথা থেকে জানা গিয়েছে, ফেসবুকের মাধ্যমে অনুপম হাজরার সঙ্গে আলাপ হয় তাঁর। তারপর নিজেদের মধ্যে টুকটাক কথাবার্তা এগিয়ে যেতে থাকে। একসময় তাদের সেই সম্পর্ক বেশ গাঢ় হয়। এরপর ওই মহিলার সঙ্গে দেখা করার জন্য অনুপম হাজরা তাঁকে জানান- হয় তিনি কলকাতায় আসুন, না হলে অনুপম নিজেই ঢাকায় গিয়ে তাঁর সঙ্গে দেখা করবেন। শেষ পর্যন্ত ভোটের মাস দুয়েক আগে ওই মহিলা তাঁর এক বান্ধবীকে নিয়ে কলকাতায় আসেন। মহিলার দাবি, লেকটাউনের কাছে একটি অ্যাপার্টমেন্টে তাদের দু’জনের থাকার ব্যবস্থা করে দেন অনুপম। অনুপমের এক বন্ধুর নামে গোটা ব্যবস্থা করা হয়েছিল। সেখানে সাতদিন ছিলেন ওই মহিলা। মহিলার দাবি, ওই সাত দিনের মধ্যে বেশ কয়েকদিন অনুপম ওই অ্যাপার্টমেন্টে গিয়ে তাঁর সঙ্গে দেখা করে আসেন। এমনকী রাতেও সেখানে থাকেন।

​এরপর বিস্ফোরক অভিযোগ করেছেন বাংলাদেশের ওই মহিলা। তিনি বলেছেন, ভোটে দরকার হবে বলে তাঁর কাছে অনুপম হাজরা এক কোটি টাকা চেয়েছিলেন। কিন্তু, এক দেশ থেকে আর এক দেশে সেই টাকা পাঠানোর অনেক ঝঞ্ঝাট আছে বলে তিনি অনুপমকে জানান। শেষ পর্যন্ত সেই টাকা অবশ্য তাঁকে দিতে হয়নি বলে জানিয়েছেন ওই মহিলা। একইসঙ্গে ওই মহিলা দাবি করেছেন, অনুপম তাঁকে বারবার বলেছেন তিনি টাকার জন্য রাজনীতি করেন। মোটা টাকা জমিয়ে নিতে পারলেই তিনি রাজনীতি ছেড়ে দিয়ে ব্যবসা শুরু করবেন।

​মহিলার দাবি, তিনি সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের। তাই তাদের সম্পর্ক এগিয়ে নিয়ে যেতে গেলে অনেক প্রতিবন্ধকতা আসতে পারে- এই কথাটি তিনি বারবার অনুপমকে বলেছেন। উত্তরে অনুপম ওই মহিলাকে জানান, এটা কোনও সমস্যাই হবে না। কারণ তিনি নাস্তিক। মহিলার দাবি, একাধিক সময় তিনি দেখেছেন বেশ কয়েকজন অন্য মহিলার সঙ্গে অনুপম ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ রেখে চলেছেন। তাদের কথোপকথনের চ্যাট তিনি মোবাইলে দেখেছেন বলে দাবি করেছেন। এই নিয়ে তিক্ততার শুরু। তারপর থেকে অনুপম ওই মহিলাকে এড়িয়ে যেতে থাকেন বলে দাবি করেছেন তিনি। শেষ একমাস ওই মহিলার সঙ্গে অনুপমের কোনও যোগাযোগ নেই বলে তাঁর দাবি।

​বাংলাদেশের ওই মহিলার বক্তব্য, অনুপমের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ার আগে তিনি তাঁর নিজের সামাজিক অবস্থানের কথা একাধিকবার জানিয়েছেন তাঁকে। অনুপমের দিক থেকে ইতিবাচক সাড়া মেলার পর তাদের সেই সম্পর্ক এগিয়ে যায়। কিন্তু পরবর্তীতে দেখা যায় অনুপমের সঙ্গে আরও বেশ কয়েকজন মহিলার সম্পর্ক আছে। আর এই বিষয়টি মেনে নিতে পারেননি বাংলাদেশের ওই মহিলা। তাঁর সঙ্গে এমন হওয়ায় তিনি প্রতারিত হয়েছেন বলে দাবি করেছেন। শেষে তাঁকে তাকে বলতে শোনা যায়, বাংলাদেশে দাঁড়িয়ে এমনটা করলে অনুপমকে তিনি উচিত শিক্ষা দিতেন।

​বিজেপি’র এই গুরুত্বপূর্ণ নেতা সম্পর্কে প্রতিবেশী দেশের এক মহিলা যে অভিযোগ এনেছেন এবং সেই অভিযোগ যে ভাবে সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে, তা নিয়ে যথেষ্ট সোরগোল পড়েছে সব মহলে। বিষয়টির সত্যতা জানার জন্য আমরা বারবার যোগাযোগ করি অনুপম হাজরার সঙ্গে। কিন্তু, তাঁর সঙ্গে কোনও ভাবেই যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। এখানে সেই অডিয়ো ক্লিপ্ট-টি দেওয়া হল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here