kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি, পুরুলিয়া: সারা দেশে টানা ২১দিন লগডাউন জারি করা হয়েছে। গৃহবন্দি সমস্ত মানুষ। তার মধ‍্যেও নুতন আতঙ্কে ভুগছে পুরুলিয়ার বেশ কয়েকটি গ্রাম। কারণ, পুরুলিয়ার বিভিন্ন গ্রাম থেকে বহু যুবক ভিনরাজ্যে পাড়ি দিয়েছিলেন কাজের সন্ধানে। গুজরাট, মুম্বই, চেন্নাই, পঞ্জাব, পুনের মতো বড় বড় শহরে দীর্ঘদিন দ্গ্রে কাজ করছেন পুরুলিয়ার বিভিন্ন গ্রামের যুবকরা। এখন করোনা আতঙ্কে অনেকেই বাড়ি ফিরেছেন। আর তাদের গ্রামে ফেরার খবর চাউর হতেই নুতুন আতঙ্ক গ্রামে। বহু গ্রামেই প্রবেশপথে বাঁশ বেঁধে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে রাস্তা। ঢোল পিটিয়ে সতর্ক করা হচ্ছে, যারা ভিনরাজ‍্য থেকে গ্রামে ফিরেছেন, তারা অবিলম্বে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। অন‍্যথা পুলিশ তাদের বিরুদ্ধে ব‍্যবস্থা নেবে। আর এই অবস্থায় গ্রামের কেউ পাশে দাঁড়াবে না।

পাড়া থানার আনাড়া গ্রামে এপাড়া থেকে ওপাড়া ফতোয়া জারি করে ঢোল পিটিয়ে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে এই কথা। বলা হচ্ছে, যারা ভিনরাজ‍্য থেকে গ্রামে ফিরেছেন, তারা অবিলম্বে হাসপাতালে গিয়ে ভর্তি হোন। যদিও এব‍্যপারে পাড়া বিধানসভার বিধায়ক উমাপদ বাউরি জানান, যারা অসুস্থ বোধ করছেন তাদের হাসপাতালে যাওয়ার প্রয়োজন রয়েছে। বাকি যারাই ভিনরাজ‍্য থেকে গ্রামে ফিরেছেন, তারা যেন গৃহবন্দি অবস্থায় চোদ্দ দিন থাকেন।

লকডাউনের দিন কয়েক আগেই পুরুলিয়া জেলার বিভিন্ন প্রান্তের বহু যুবক ভিনরাজ্য থেকে নিজের নিজের গ্রামে ফিরে এসেছেন। এদের অনেকের ঠিকমতো শারীরিক পরীক্ষা হয়েছে কিনা তা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন। অন্যদিকে, পুরুলিয়ার প্রত্যন্ত গ্রামে গৃহবন্দি হওয়া নিয়েও তৈরি হয়েছে চাপানউতোর। গ্রামবাসীর দাবি, যে সমস্ত মানুষ ভিনরাজ্য থেকে গ্রামে ফিরে এসেছেন, প্রশাসনের উচিত তাঁদের চিহ্নিত করে আলাদা রাখা। এ প্রসঙ্গে জেলা প্রশাসনের এক আধিকারিক জানান, অনেককেই চিহ্নিতকরণ করে আলাদা রাখা হয়েছে। তাদের ওপর নজর রেখেছে প্রশাসন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here